গাজীপুরে অসহায় বৃদ্ধার জমি দখলের অভিযোগ হাব নেতার বিরুদ্ধে

পলাশ মল্লিক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় এক অসহায় বৃদ্ধার জমি দখলেরর অভিযোগ উঠেছে হাব নেতার বিরুদ্ধে।

উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নেরফুলদী উত্তরপাড়া এলাকায় সিয়ামফুড বেভারেজের মালিক অর্থের দাপট দেখিয়ে এ দখলদারিত্ব চালাচ্ছে। নির্মাণাধীন কারখানার মালিক হজ এজেন্সিস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর গত মেয়াদে সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, ফুলদীপশ্চিমপাড়া এলাকার মৃত ছফুরউদ্দিনের ছেলে মোহাম্মদ হেলাল খান প্রায় ১৫ বিঘা জমিতে কারখানারনির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। যার বেশির ভাগ জমি নাওয়ান মৌজায়।কিছু অংশ ফুলদীতে। কারখানার পূর্বদিকের সীমানা প্রাচীর করতে বৃদ্ধাহোসনেয়ারা বেগমের প্রায় আড়াইশতাংশ জমি দখল করেছেন।

হোসনেয়ারা পরিবার জানায়,কারখানার লোকজন প্রথমে একটিতালগাছ ও চারটি কড়ইগাছ জোরকরে কেটে নিয়ে যায়। পরেআমগাছসহ আরও ১২টি গাছেরডালপালা কাটা হয়।

এতে বাধা দিলেও তারা থামেনি।বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদেরচেয়ারম্যানকে জানালে মাপজোখহয়। শেষে চেয়ারম্যানও নীরব ভূমিকাপালন করেন।

নাম গোপনের শর্তে স্থানীয় একজন জানান, জমির মাপজোখ শেষে বক্তারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান আকন্দফারুক তার কার্যালয়ে ৭-৮ জনের উপস্থিতিতে বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব মাজেদুল ইসলাম সেলিম বার বার ফোন দিয়ে তাকে হেলাল খানের পক্ষে রায় দেওয়ার জন্য চাপ দিয়েছেন। তাই তিনি এর কোন সমাধান দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে জানতে মুঠোফোনে মাজেদুল ইসলাম সেলিমের নম্বরে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এদিকে ঘটনাটি গত মাসে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহেরআফরোজ চুমকিকে জানানো হলে তিনি হেলাল খানকে ফোনে কাজ বন্ধের নির্দেশ দেন। একই সাথে চেয়ারম্যানকেও দায়িত্ব দেওয়া হয়।কিন্তু ওই কারনে এর কোন সমাধান হয়নি।

স্থানীয়দের ভাষ্য, কারাখানার সীমানা প্রাচীরের ভিতরে অতিরিক্ত সাড়ে ৭৪ শতাংশ জমি রয়েছে। যা হাব নেতা হেলাল খানের দখলে। ওই চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে সার্ভেয়ার জমির মাপজোখ করে তা বের করেন। যার কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি হেলাল খান। এছাড়াও কারখানার পূর্ব দিকে ২-৩ ফুট পাকা সড়কের অংশ দখল করে সীমানাপ্রাচীরের নির্মাণ কাজ চলছে।

চাউড় রয়েছে অভাব-অনটনের কারণে মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরোতে না পারলেও আদম ব্যবসায়ী হেলাল খান দুই দশকেরও কম সময়ে বিশাল বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছেন। তিনি মসজিদের জন্য অনুদান দিয়ে তা ফেরত নিয়েও ব্যাপক সমালোচিত হয়েছেন।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুররহমান আকন্দ ফারুকের ভাষ্য, তিনিদুই-তিনবার কাজ বন্ধ করেছেন।সমঝোতার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। হেলাল খান আবারও কাজকরেছেন।

অভিযুক্ত হেলাল খানের সঙ্গেমোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগেরচেষ্টা করলেও তার দুটি নম্বরই বন্ধথাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

অপরদিকে জমি দখলের ঘটনায়হোসনেয়ারা বেগম গত ২০ জানুয়ারি কালীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি (নং ৬৬২) করেছেন। পরে তদন্ত করতে রোববার উপ-পরিদর্শক (এসআই)নাজমুল ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলপরিদর্শন করেন। এসময় হেলাল খানের বড়ভাই মন্টু পুলিশের সামনেই বাদীর নিকট আত্মীয়ের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। পরে পুলিশ দুই পক্ষকে থানায় ডাকা হবে বলে চলে যায়।