হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ঘরে ফেরার আগে যা জানালেন আইভি

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা-
নারায়ণগঞ্জের শান্তি কাউকে নষ্ট করতে দেয়া হবে না উল্লেখ করে মেয়র আইভী বলেছেন, শান্তির নারায়নগঞ্জ শান্তির নারায়নগঞ্জই থাকবে। সত্য ও নৈতিকতার কাছে অস্ত্রের ঝনঝনানির পরাজয় হয়েছে।

মঙ্গলাবার ল্যাবএইড হাসপাতালে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ের সময় নারায়ণগঞ্জের মেয়ন আইভী এসব কথা বলেন।

মেয়র আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ‘সশস্ত্র আক্রমণ থেকে নিরস্ত্র লোকজন ঝাঁপিয়ে পড়ে আমাকে রক্ষা করেছেন। আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। আমি আপনাদের বোন, আপনাদেরই একজন। আমি জীবনে কোনোদিন এত ভালোবাসা পাইনি। আমার আর কিছু পাওয়ার নেই। একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে আমি অনেক ভালোবাসা পেয়েছি। আমার নেত্রীর প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে চাই।

তিনি বলেন, ‘আমার সঙ্গে কারও কোনও বিরোধ নেই। দেশসেবা করতে আমি নিউজিল্যান্ড থেকে চলে আসি। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগের ভরাডুবির পর ২০০৩ সালে ক্যান্ডিডেট হয়ে আমি পাস করেছিলাম। আমি শেখ হাসিনার পরীক্ষিত সৈনিক। আমাকে বারবার পরীক্ষা দিতে হবে না। আমি আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিত কর্মী। একজন মেয়র হিসেবে আমি নারায়ণগঞ্জের সকলের লিডার। আমি আমার শহরের লিডার। আই অ্যাম অ্যা ফাইটার, আই অ্যাম অ্যা লিডার। আমার ফুটপাত দিয়ে আওয়ামী লীগ হাঁটবে, বিএনপি হাঁটবে এবং আমার ফুটপাত দিয়ে জনগণ হাঁটবে। এটা সকলের অধিকার। আমি যখন ট্যাক্স নেই তখন সবার কাছ থেকে নেই। সিটি লিডার হিসেবে আমি সবার মেয়র।’

তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে আমি শেখ হাসিনার এক ক্ষুদ্র কর্মী। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী। আমি আলী আহম্মদ চুনকার সন্তান। এই আমার পরিচয়। সকল কিছু আমার জনগণ, নারায়ণগঞ্জের জনগণ। যেই জনগণের জন্য আমি বেঁচে আছি, এখানে দাঁড়িয়ে আছি। আমি আপনাদের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলছি।’

উল্লেখ্য, নগরীর সৌন্দর্য অক্ষুণ্ন রাখতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভেতরের সড়কের ফুটপাথগুলো হকারমুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেন মেয়র আইভী। এই সিদ্ধান্তে হকাররা প্রতিবাদ জানালে তাদের সমর্থন জানান শামীম ওসমান। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বক্তব্য-পাল্টা বক্তব্য রাখার ঘটনাও ঘটে।

সবশেষ মেয়র আইভী নগরীর ফুটপাথ থেকে হকারদের উচ্ছেদের ঘোষণা দিলে তাদের আবারও ফুটপাথে বসানোর ঘোষণা দেন শামীম ওসমান। এর প্রতিবাদে গত ১৬ জানুয়ারি নগর ভবন থেকে পায়ে হেঁটে মেয়র আইভী তার নেতাকর্মীদের নিয়ে মিছিলসহ চাষাঢ়া এলাকায় আসেন। তারা মুক্তি জেনারেল হাসপাতালে সামনে এলে শামীম ওসমানের সমর্থক ও হকাররা তাদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ও গুলি ছোড়ে। এই ঘটনায় উভয়পক্ষে টান টান উত্তেজনার মধ্যেই ১৮ জানুয়ারি বিকালে নগরভবনে কর্মরত অবস্থায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন মেয়র আইভী। তাকে সেদিন বিকালেই রাজধানীর ল্যাব এইডে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসা শেষে আজ মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) সুস্থ হয়ে তিনি ঘরে ফিরে গেলেন।

Leave a Reply