টানা চারবছর ভুতের সাথে চুটিয়ে প্রেম করে অবশেষে সেই ভুতকেই বিয়ে করে তাক লাগালেন এক নারী !

চিত্র কি বিচিত্র ডেস্ক-
বিচিত্র এই পৃথিবীতে নিত্যই যে কত অবাক করা ঘটনার জন্ম হয় তার কোন ইয়ত্তা নেই। নানান ভাবনার মানুষের নানারকম কর্মকান্ড জেনে রীতিমত চোখ উঠে কপালে। এবার বিচিত্র এক ঘটনার জন্ম দিলো নিঃসঙ্গতায় ভোগা এক নারী।
শুনতে উদ্ভট মনে হলেও বেশ আয়োজন করেই ১৮ শতকের এক বিখ্যাত জলদস্যুর (আত্মা) ভূতকে বিয়ে করেছেন দেশটির আমান্ডা তেগ নামের পঁয়তাল্লিশ বছর বয়সি এক  নারী।
ঐ নারীর দাবীমতে এর চেয়েও অবাক করা তথ্য হলো, শুধু বিয়েই নয়! টানা চারবছর নাকি ঐ ভুতের সাথে চুটিয়ে প্রেম করেছেন, পরস্পরকে বুঝেছেন, এরপরই নিয়েছেন বিয়ের সিদ্ধান্ত!
ভুতের সাথে এই বিয়ে আমান্ডা বেশ ধুমধামের সাথেই করেছেন। আত্মিয় স্বজন, বন্ধু-বান্ধব্বসহ উতসুক অনেকেই ছিলেন এই অভিনব বিয়েতে। রীতিমত মন্ত্রপাঠ করে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়েই সম্পন্ন হয় বিয়ে।

দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বেশ সাড়া পড়েছে ভুতের সাথে বিয়ের এমন ব্যতিক্রমি ঘটনাটি ।
সংবাদটি গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করেছেন ডেইলি মেইল সহ আন্তর্জাতিক গনমাধ্যমেও।


ভুতের বৌয়ের বরাতে প্রকাশিত সংবাদসুত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে জীবন সঙ্গী খুঁজছিলেন আমান্ডা। অনেক খোঁজাখুজির পরও যখন মনের মতো কারো দেখা পাননি তখন সঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনশ বছর আগে মারা যাওয়া জ্যাক স্পারো নামের এক জলদস্যুর ভূতকে।

তবে ভুতকে বিয়ে করার পেছনে নিজের যুক্তি তুলে ধরে আমান্ডা আরও জানিয়েছেন, ভূত বিয়ে করার সিদ্ধান্ত এক দিনে নেননি তিনি । ঘটনার শুরু ২০১৪ সালের এক রাতে। প্রতিদিনের মতো আমান্ডা রাতের খাওয়া সেরে বিছানায় শুয়ে ছিলেন। হঠাৎ তিনি অনুভব করলেন তার পাশে কেউ একজন শুয়ে আছে।

প্রথমে চমকে গেলেও পরক্ষণেই নিজেকে সামলে নেন যখন জ্যাকের আত্মা তার সঙ্গে কথা বলা শুরু করে। এরপর গত চার বছর তারা চুটিয়ে প্রেম করেছেন, একে অপরকে জেনেছেন। এরপরই নাকি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সারাজীবন একসাথে কাটানোর।

এই সংবাদের বিস্তারিত দেখে নিতে পারেন ডেইলি মেইলে প্রকাশিত সংবাদে এই লিংকে ক্লিক করে 

আর দশটা নারীর মতো আমান্ডাও তার ভূত স্বামীকে নিয়ে দিব্যি সুখে শান্তিতে ঘর সংসার করছেন। নিজের বিয়ে নিয়ে এক সংবদামধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে আমান্ডা বলেন, ‘সে আমার আত্মার আত্মীয়। তাকে নিয়ে আমি সুখে আছি। তিনি দাবী করেছেন তাদের  দাম্পত্য জীবনও স্বাভাবিক। যারা অলৌকিক সম্পর্কে বিশ্বাস করেন না তাদের জন্য আমার এই বিয়ে একটা বার্তা।’

এমন বিচিত্র ঘটনার ব্যখ্যায় অবশ্য মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, দির্ঘ নিঃসঙ্গতা থেকে এভাবে কোন অদৃশ্য অস্তিত্বের অনুভব প্রবল হতে পারে কারো জীবনে।