SOMOYERKONTHOSOR

লক্ষ্মীপুরে সাংবাদিক পলাশের খুনিদের বিচারে জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি

মোঃ ইমাম উদ্দিন সুমন, স্টাফ করেসপন্ডেন্টঃ লক্ষ্মীপুরে সাংবাদিক শাহ মনির পলাশের হত্যার প্রতিবাদ এবং ঘাতকদের গ্রেফতার, বিচার এবং তাদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে। রোববার (১৮ ফেব্র“য়ারি) সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে লক্ষ্মীপুর সম্পাদক-প্রকাশক পরিষদ এ আয়োজন করা হয়। মানববন্ধন শেষে ঘটনায় দোষীদের বিচার ও শাস্তির দাবীতে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পালের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলীপি প্রদান করা হয়।

এতে নিহত পলাশের বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী, জেলার স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক-প্রকাশকরা ছাড়াও চন্দ্রগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিক, জেলার কর্মরত প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক্স ও অনলাইন সহ বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকরা এতে অংশ নেয়। মানববন্ধনের বক্তব্য রাখেন লক্ষ্মীপুর সম্পাদক-প্রকাশক পরিষদের সভাপতি মোঃ কামাল উদ্দিন হাওলাদার, চন্দ্রগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী হোসেন,

সম্পাদক-প্রকাশক পরিষদের সাধারন সম্পাদক মোঃ সহিদুল ইসলাম সহিদ, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক আফজাল হোসেন সবুজ, দৈনিক আলোকিত লক্ষ্মীপুরের সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাফিজ উল্যাহ, সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম, একিউএম সাহাবুদ্দিন, সাংবাদিক ও অধ্যক্ষ আবদুন নুর, জহিরুল ইসলাম শিবলু, তোফায়েল আহম্মেদ, একেএম মিজানুর রহমান, প্রভাষক মানছুর রহমান, রজিব-উজ-জামান, যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম মিঠু,

আবদুল ওয়াহাব ভূঁইয়া সহ প্রমুখ। মানবন্ধনে পলাশের হত্যাকারীদের গ্রেফতার, শাস্তি, বিচার সহ গত ৮ ফেব্র“য়ারী জেলা শহরে ৩ সাংবাদিকের উপর হামলা, ক্যামরা ও তাদের পেশাগত মালামাল ছিনিয়ের নেওয়া এবং অন্যান্য সাংবাদিকদের হামলা নির্যাতন হয়রানির প্রতিবাদ সহ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার শাস্তির দাবী জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে সদর উপজেলার মাছিমনগর গ্রামে পারিবারিক জমিসংক্রান্ত বিরোধে দৈনিক রুপবানী পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি পলাশকে তার দুই চাচাতো ভাই পিটিয়ে আহত করে।

পরে বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ভোরে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান পলাশ। পরে রাতে নিহতের বাবা মনির হোসেন লক্ষ্মীপুর সদর থানায় বাদি হয়ে আবু ইউছুফ, আবু ছায়েদ ও ইউছুফের স্ত্রী ফয়েজুন নেছাকে আসামি করে মামলা করেন। অন্যদিকে অভিযুক্ত ফয়েজুন নেছাকে নামের ওই নারীকে গ্রেফতার করলেও অন্যদের এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।