২১ মিনিট মুখোমুখি বাক প্রতিবন্ধী ও সবাক মানুষ!

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার চাটমোহরে অন্যরকম ভাবে পালিত হল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারী) সকালে উপজেলার হান্ডিয়াল বাজারে আরএন প্লাজার সামনে একুশ ফুট দৈর্ঘ্যরে কালো পতাকা তলে বসে ২১ জন বাক প্রতিবন্ধী মানুষের মুখোমুখি বসে ২১ জন কথা বলতে পারা সবাক মানুষ ২১ মিনিট মৌনতা (নীরবতা) পালন করে তাদের প্রতি সহমর্মিতা জ্ঞাপন করেন। ব্যতিক্রমী এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন আরএন প্লাজার মালিক তরুণ উদ্যোক্তা হুমায়ুন কবির।

এ সময় বাক প্রতিবন্ধীদের আহাজারি দেখে সবাই আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। সবার চোখেই ছিল অশ্রু। শুরুতে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশু লাবনী আক্তার।

আয়োজনের মধ্যে আরও ছিল কবিতা পাঠ ও বই উৎসব। শহরকে পেছনে ফেলে প্রত্যন্ত গ্রামে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ব্যতিক্রমী এই আয়োজন নজর কেড়েছে সবার। প্রতীকি মৌনতায় অংশ নেয়া স্থানীয় গৃহবধূ ববি রানী বলেন, ‘মাত্র ২১ মিনিট কথা না বলে বুঝলাম বাকপ্রতিবন্ধীদের কথা বলতে না পারার কষ্ট। এর চেয়ে আর কষ্টের কি হতে পারে!’

আয়োজক হুমায়ুন কবির বলেন, ‘একুশ মানে মাথানত না করা, একুশ মানে সহমর্মিতা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বাকপ্রতিবন্ধীদের সামনে বসে ২১ মিনিট নীরবতা পালন করে উপলব্ধি করলাম ভাষাহীনদের কষ্ট।

ভাষাহীন মানুষের প্রতি সহমর্মিতা জ্ঞাপনে এমন প্রতীকি তাৎপর্যপূর্ন আয়োজন সম্পন্ন করতে পেরে ভাল লাগছে। একুশের চেতনাকে ধারণ করতে ও নতুন প্রজন্মের মাঝে একুশের চেতনা ছড়িয়ে দিতে এই আয়োজন। পৃথিবীর সব ভাষাহীন মানুষকে এই ২১ মিনিট আমি উৎসর্গ করলাম।’

এরআগে প্রতীকি নীরবতা অনুষ্ঠানের শুরুতে বক্তব্য দেন, মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবদুল খালেক, মুক্তিযোদ্ধা গোলজার হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ গ্রামের বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক খায়রুজ্জামান মুন্নু, চাটমোহর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কেএম বেলাল হোসেন স্বপন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, হুমায়ুন কবির এর আগে একই স্থানে গত বছরের ডিসেম্বর মাসে মহান বিজয় দিবসে ৭১ ফুট দৈর্ঘ্যরে জাতীয় পতাকা প্রদর্শনী করে আলোচিত হন।

Leave a Reply