SOMOYERKONTHOSOR

টাঙ্গাইলে জিপিএ-৫ পাইয়ে দেয়ার আশ্বাসে কিশোরকে যৌন নির্যাতন!

জিপি-৫ পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এক কিশোরকে যৌন নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে এক ভণ্ড পীরের বিরুদ্ধে। টাঙ্গাইলের সখিপুর পৌরসভা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

বুধবার দুপুরে কথিত এক পীরের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের মামলা করে কিশোরের পরিবার। পরিবার ও থানা সূত্রে জানা গেছে, সখিপুর পৌরসভায় ওই কিশোরের নানা বাড়ি। সেখানে বাউলগানের অনুষ্ঠান উপলক্ষে কিশোর ১৮ ফেব্রুয়ারি বেড়াতে আসে। অনুষ্ঠানে কিশোরের নানা আবদুল খালেকের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। একপর্যায়ে খালেক তার আধ্যাত্মিক ক্ষমতা দিয়ে কিশোরকে জিপিএ-৫ পাইয়ে দেবার কথা আশা দেয়।

একপর্যায়ে সে কিশোরকে তার নিজ বাড়িতে দেখা করতে বলে। আরও বলে যে, বাড়িতেই তার আধ্যাত্মিক ক্ষমতা প্রয়োগ করা হবে বলেও জানায়। কথা মতো কিশোর তার বাড়িতে গেলে ভণ্ড পীর অংক করতে দেয়। এরপর অংক কাটাকাটি করে অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে সে। দরজা বন্ধ করে দেয়। এরই একপর্যায়ে সে কিশোরকে যৌন নির্যাতন করে।

আধাঘণ্টা পর কিশোরকে বিষয়টি কাউকে বলতে বারণ করে নানা বাড়িতে পৌঁছে দেয়। এছাড়া ঘটনা জানাজানি হলে জিপিএ-৫ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে যাবে বলেও হুমকি দেয় ভণ্ড পীর।

কিশোরের মা জানান, ‘দু’দিন ধরে সে কিছুই খাচ্ছে না। মন খারাপ করে থাকে। ঘুমাতেও পারছে না। পরে জিজ্ঞেস করলে সে নির্যাতনের বিষয়ের কথা জানায়।

এদিকে আবদুল খালেকের স্ত্রী দাবি করেন, ‘তার স্বামী কোনো পীর নন। একজন মানসিক রোগী।’ তিনি আরো জানান, ‘আজ (বুধবার) সকালে ১০টার দিকে মুরগির খামার (উপজেলার মহানন্দপুর গ্রামে) দেখতে যাবার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়।’

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজমুল হক জানান, ‘এই বিষয়ে আজ একটি মামলা হয়েছে। খালেককে গ্রেফতারের চেষ্টা করছি। কাল (বৃহস্পতিবার) কিশোরের মেডিকেল পরীক্ষা করা হবে।’

সময়ের কণ্ঠস্বর/ফয়সাল