SOMOYERKONTHOSOR

কার্যকর হয়নি শাকিব-অপুর তালাক; চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত ১২ মার্চ

বিনোদন আপডেট ডেস্ক-
গেল বছরের ২২ নভেম্বর শাকিব খান আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলামের মাধ্যমে তালাক নোটিশ পাঠান অপু বিশ্বাসকে।

তিনি জানান, ওইদিন থেকে আইন অনুযায়ী তিনমাস অর্থাৎ ৯০ দিন সময় ছিল এই তালাক কার্যকর হতে। আজ (২২ ফেব্রুয়ারি) পূর্ণ হলো তিন মাস। তাই আইন অনুযায়ী আজ থেকে তারা আর স্বামী-স্ত্রী নন’ এমন খবর চাউর হলেও প্রকৃতপক্ষে চলচ্চিত্র তারকা দম্পতি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিচ্ছেদ কার্যকর হবে কিনা তা নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে আগামী ১২ মার্চ।

এর আগে শাকিবের পক্ষ থেকে অপুকে তালাকের নোটিস পাঠানোর তারিখ অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবারই তাদের তালাক কার্যকর হচ্ছে বলে খবর ছড়িয়ে পড়ে ।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বিয়ষটি নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) অঞ্চল-৩-এর নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন।

তিনি বলেন, শাকিব-অপুর বিচ্ছেদ এখনও কার্যকর হয়নি। শাকিব-অপুর তৃতীয় ও শেষ শুনানি হবে আগামী ১২ মার্চ। ওইদিন তালাক কার্যকরের বিষয়ে সবকিছু চূড়ান্ত হবে।

গত বছরের ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসের বাসার ঠিকানায় তালাকনামা পাঠান শাকিব খান। তালাকের কারণ হিসেবে নোটিশে বলা হয়, অপু বিশ্বাস শাকিবের পছন্দের সীমার মধ্যে থাকেননি। সম্প্রতি তাদের সন্তানকে গৃহপরিচারিকার কাছে রেখে দেশের বাইরে যান অপু।

২২ নভেম্বরের হিসেবে নির্ধারিত তিন মাসের তারিখ ধরে গণমাধ্যমে বৃহস্পতিবার খবর প্রকাশিত হয় তাদের তালাক কার্যকর হচ্ছে ২২ ফেব্রুয়ারি।

এ ব্যাপারে চলতি মাসের শুরুর দিকে শাকিবের পক্ষের আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম জানান, আইন অনুযায়ী ২২ ফেব্রুয়ারি শাকিব-অপুর তালাক কার্যকর হবে। এর পর শাকিব দেনমোহরের টাকা পরিশোধ ছাড়াও প্রতি মাসে সন্তানের খরচ বাবদ অপুকে এক লাখ টাকা প্রদান করবেন।

তবে ডিএনসিসির কর্মকর্তার বক্তব্য অনুযায়ী এ দম্পতি সংসার টিকিয়ে রাখা না রাখার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আরও কিছুদিন সময় পেলেন।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ১৮ই এপ্রিল বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। ২০১৬ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর জন্ম হয় তাদের সন্তান আব্রাম খান জয়ের। দীর্ঘদিন এসব খবর গোপন থাকার পর গত বছরের এপ্রিলে একটি টিভি চ্যানেলের লাইভে এসে বিয়ের খবর ফাঁস করেন অপু বিশ্বাস।

সন্তানকেও সবার সামনে হাজির করেন সে সময়। এরপর অবশ্য বেশ কিছুদিন শাকিব ও অপুকে একসঙ্গে দেখা গেছে। এরপর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিরোধ তৈরি হয় দুজনের।

সেসব মিডিয়াতে নিয়মিতই প্রকাশ পায়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে শাকিব খান তিন মাস আগে ডিভোর্স নোটিশ পাঠান অপুর কাছে। এরপর অপু বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেছেন সংসার টিকিয়ে রাখতে। কিন্তু সেটা হয়নি। শেষ পর্যন্ত অপুও জানিয়েছেন তিনি ডিভোর্স মেনে নিয়েছেন।

এর আগে ২০০৬ সালে চলচ্চিত্রে শাকিব-অপু জুটির যাত্রা শুরু। ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল দুজনে গোপনে বিয়ে করেন এবং গত সেপ্টেম্বরে কলকাতায় তাদের পুত্রসন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু বিয়ে ও সন্তানের বিষয়টি তারা গোপন রেখেছিলেন।

এরপর গত ১০ এপ্রিল সন্তান কোলে টেলিভিশন লাইভে এসে নাটকীয়ভাবে এ বিষয়ে মুখ খোলেন অপু। শুরুতে এ নিয়ে শাকিব নানা কথা বললেও পরে মিটমাট করে ফেলেন। কিন্তু বিয়ের খবর প্রকাশের ৯ মাসের মাথায় অপুকে তালাকনামা পাঠান শাকিব।

অপু ৭২টি ছবিতে শাকিবের বিপরীতে অভিনয় করেছেন; যার মধ্যে বেশিরভাগ ছবি ব্যবসা সফল।