খালেদার ৫ রোগ

সময়ের কণ্ঠস্বর- জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার সাজার বিরুদ্ধে করা আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন চাওয়া হয়েছে হাইকোর্টে। ওই জামিন আবেদনের ওপর আজ রোববার শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

জামিন আবেদনে খালেদা জিয়া নিজের ৫টি রোগের কথা আদালতকে অবহিত করেছেন। এসব রোগসহ অন্যান্য গ্রাউন্ডে উচ্চ আদালতের কাছে জামিন আবেদন করেছেন তিনি।

জামিন আবেদনে বলা হয়, তার (খালেদা জিয়ার) বয়স ৭৩ বছর। তিনি শারীরিক নানান জাটিলতায় ভুগছেন। গত ৩০ বছর ধরে তিনি গেঁটে বাতে আক্রান্ত। তাছাড়া ২০ বছর ধরে ডায়াবেটিসে, ১০ বছর যাবত উচ্চ রক্তচাপ ও আয়রন স্বল্পতায় ভুগছেন।

হাইকোর্টের রোববারের কার্যতালিকায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনটি ৩৬ নম্বরে রয়েছে। দুপুর ২টায় আপিল ও জামিন আবেদনের শুনানি বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকারও বেশি জরিমানা হয়। সেদিন থেকেই তিনি ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী।

১২ দিন পর ২০ ফেব্রুয়ারি দণ্ড বাতিলে আপিল করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। আর দুই দিন পর শুনানিতে সে আপিল গ্রহণের পাশাপাশি স্থগিত করা হয় জরিমানার দণ্ড। আর কারাদণ্ড স্থগিত এবং জামিনে মুক্তির বিষয়ে রবিবার শুনানির কথা জানানো হয় সেদিনই।

এসময় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া একজন বয়স্ক নারী, সেই বিবেচনায় তাকে জামিন দেওয়া যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন আদালত।

জামিন আবেদনে খালেদা জিয়া আদালতকে জানান, ১৯৯৭ সালে তার বাম হাঁটু এবং ২০০২ সালে ডান হাঁটু প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। যে কারণে তার গিটে ব্যথা হয়, যা প্রচণ্ড যন্ত্রণাদায়ক।

খালেদা জিয়ার আইনজীবীর জামিনের বিরোধিতা করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষ থেকে সময়ের আবেদন করা হলে আদালত বলেন, ‘সাত বছর পর্যন্ত সাজাপ্রাপ্ত যেকোনো ব্যক্তিকে এই আদালত জামিন দিতে পারেন। খালেদা জিয়া পাঁচ বছরের জন্য সাজা পেয়েছেন। তাই তাকে আদালত জামিন দিতে পারেন। তারপর তিনি নারী ও বয়স্ক, তিনি জামিন পেতে পারেন।’

এর আগে আপিলের গ্রহণযোগ্যতা শুনানির পাশাপাশি খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদনের ওপরও শুনানি শুরু হয় একই বেঞ্চে।

খালেদা জিয়ার পক্ষে এজে মোহাম্মদ আলী আপিল গ্রহণের শুনানি শুরু করেন। এসময় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশিদ আলম খান সময়ের আবেদন করেন। আদালত আবেদন গ্রহণ করে আগামী রবিবার পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেন।

বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ আশা করছেন, আজকেই তার নেত্রী জামিন পাবেন। আর কারাগার থেকে বের হয়ে এসে তিনি ধানের শীষে ভোট চাইবেন।

রবি

Leave a Reply