শ্রীদেবীর সঙ্গে মিঠুনের বিয়ে বিতর্ক!

বিনোদন ডেস্ক- চলে গেলেন ভারতীয় চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেত্রী শ্রীদেবী। শনিবার রাতে দুবাইয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ৫৪ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

অভিনয় জীবনে একের পর এক সাফল্য পেয়েছেন দক্ষিণী সিনেমা থেকে বলিউডে পা দেওয়া এই নায়িকা। আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

এবেলা বলছে, এতটা সফলতার পথ পেরিয়েও ব্যক্তিগত জীবন বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছিল শ্রীদেবীকে। যার সূত্রপাত মিঠুনের সঙ্গে বিয়ে নিয়ে। পরবর্তী সময়ে স্বামী বনি কাপুরের সঙ্গে তার সম্পর্ক নিয়েও কম চর্চা হয়নি।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৫ সালে মিঠুন চক্রবর্তীর সঙ্গে বিয়ে হয় শ্রীদেবীর। যদিও মিঠুন তখন বিবাহিত। ১৯৭৯ সালেই বাঙালি এই অভিনেতা বিয়ে করেছিলেন যোগিতা বালীকে। বিবাহিত মিঠুনের সঙ্গে শ্রীদেবীর বিয়ের সত্যতা নিয়েও অবশ্য বিতর্ক রয়েছে। যদিও, উইকিপিডিয়ায় শ্রীদেবী এবং মিঠুনের বিয়ের উল্লেখ রয়েছে। ১৯৮৮ সালে অবশ্য এই বিয়ে ভেঙে যায়।

শ্রীদেবীর দ্বিতীয় বিয়েও বেশ বিতর্কিত। শোনা যায়, বনি কাপুরের প্রথম স্ত্রী মোনা কাপুরের বন্ধু হিসেবে তাদের বাড়িতে থাকতেন শ্রীদেবী। তখনই বনির সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা। শেষ পর্যন্ত মোনার সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় বনি কাপুরের। ১৯৯৭ সালে তিনি বিয়ে করেন শ্রীদেবীকে। এর পর থেকে অবশ্য একসঙ্গেই ছিলেন দুইজন।

কয়েক বছর আগেও একটি সাক্ষাৎকারে বনি বলেছিলেন, শ্রীদেবীকে স্ত্রী হিসেবে পাওয়ায় নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন তিনি।

বিবাহিত জীবনের এই বিতর্ক অবশ্য শ্রীদেবীর অভিনয় জীবনে কোনও ছাপ ফেলতে পারেনি। তাই নায়িকা হিসেবে দীর্ঘ প্রায় দুই দশক দর্শকদের মন জয় করার পর ২০১২ সালে ‘ইংলিশ ভিংলিশ’, ‘মম’ (২০১৭) ছবিতে তার অভিনয়েও দর্শকদের প্রশংসা কুড়িয়ে নিয়েছিলেন এই অভিনেত্রী।

অভিনয় জীবনের শীর্ষে থাকার সময়ে শ্রীদেবীর তুলনা করা হতো অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে। বলা হতো, অভিনেত্রীদের মধ্যে তিনি অমিতাভ বচ্চন।

ভাইপো মোহিত মারওয়াশের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দুবাই গিয়েছিলেন শ্রীদেবী। শনিবার রাতে সেখানেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বামী বনি কাপুর ও মেয়ে খুশি মৃত্যুর সময় তার পাশেই ছিলেন। তার মৃত্যুর খবরে বলিউডে নেমে আসে শোকের ছায়া।

Leave a Reply