বাড়ি না বানিয়ে নিজের জমিতে হাসপাতাল নির্মাণ করছেন ইলিয়াস কাঞ্চন

রবিউল ইসলাম (রবি), সময়ের কণ্ঠস্বর- ১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর এক সড়ক দুর্ঘটনায় চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী মারা যান। পরে ওই বছর ২৭ নভেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ নামে একটি সংগঠন গঠন করেন। সেই থেকে চলচ্চিত্রের পাশাপাশি সমাজসেবা করছেন জনপ্রিয় এই চিত্রনায়ক। সমাজসেবায় অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন একুশে পদক।

ঢাকা শহরে নিজের জমি বলতে আশুলিয়ার এক টুকরো জমি আছে বাংলাদেশী চলচ্চিত্রের অন্যতম শক্তিমান এ অভিনেতার। নান্দনিক বাড়ি না বানিয়ে এই জমিতে হাসপাতাল বানানোর ঘোষণা দিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। যেখানে সেবা দেওয়া হবে মানুষকে।

এরই মধ্যে নামও চূড়ান্ত করে ফেলেছেন। তাঁর প্রয়াত স্ত্রীর নামে এটির নাম হবে ‘জাহানারা কাঞ্চন মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল’। প্রায় দুই বিঘা জমির ওপর এটি গড়ে তোলা হবে। এরই মধ্যে হাসপাতাল নির্মাণের প্রক্রিয়াও শুরু হয়ে গেছে বলে জানালেন তিনি।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আশুলিয়াতে হাসপাতাল করতে যাচ্ছি। আমার একটি মাত্র জমি, সেখানে আমি হাসপাতাল করবো। আমার যা আছে তাই দিয়েই হাসপাতালের কাজ শুরু হয়েছে। এর মধ্যেই ৬ তলার প্ল্যান পাশ হয়েছে।

জেনারেল হাসপাতাল হলেও এখানে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত মানুষদের।’ অনেক সহযোগিতা করেছেন ইঞ্জিনিয়ার স্বপন ভাই। আমি আমার স্বপ্ন পূরণ করে চলেছি। যতদিন বেঁচে থাকবো মানুষের সেবা করে যাবো। এটাই আমার স্বপ্ন ও কাজ।

তিনি আরো জানান, ২০০০ সালে নিজ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘মুন্না মাস্তান’ মুক্তি দেন তিনি। সেই ছবি থেকে যে আয় হয় তা দিয়ে হাসপাতালের জমিটি কিনে রেখেছিলেন।

১৯৭৭ সালে বসুন্ধরা চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন ইলিয়াস কাঞ্চন। চলচ্চিত্র অভিনেতা ছাড়াও তার দুটি পরিচয় হল চলচ্চিত্র প্রযোজক এবং চলচ্চিত্র পরিচালক। মাটির কসম সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্র প্রযোজনা এবং বাবা আমার বাবা চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি চলচ্চিত্র পরিচালনা শুরু করেন। তিনি মায়ের স্বপ্ন নামেও একটি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন। ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রযোজনা সংস্থার নাম জয় চলচ্চিত্র।

রবি

Leave a Reply