বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ১৪ বাংলাদেশির মরদেহ শনাক্ত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ১৪ বাংলাদেশিসহ ২৫ জনের মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে। ত্রিভুবন ইউনিভারসিটি টিচার্স হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের ডা. রিজেন শ্রেষ্ঠা এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের পাঁচ দিন পর ফরেনসিক পরীক্ষা শেষে এসব মরদেহ তাদের উপস্থিত নিকট স্বজনদের দেখানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শনিবার (১৭ মার্চ) সন্ধ্যায় ওই হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের পক্ষ থেকে মরদেহগুলোর নাম প্রকাশ করা হয়।

এসময় হাসপাতালটির ফরেনসিক বিভাগের প্রধান প্রমোদ শ্রেষ্ঠা ও বাংলাদেশি মেডিক্যাল টিম এর সদস্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এর ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সোহেল মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ দূতাবাস ও ইউএস-বাংলার কর্মকর্তারা শনাক্ত করার কাজটি তদারকি করছেন। নিহত ব্যক্তিদের আত্মীয়-স্বজনরাও সেখানে উপস্থিত আছেন।

ব্রিফিংয়ে বলা হয় মোট ২৫টি মরদেহ শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এদের মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি, ১০ জন নেপালি ও একজন চীনা নাগরিক। নেপালি ও চীনা নাগরিকের মরদেহ স্বজনদের দেখানোর পর বাংলাদেশি নাগরিকদের মরদেহ দেখানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানানো হয়। পরে বাংলাদেশিদের তালিকা পরে শোনান ডা. সোহেল মাহমুদ।

শনাক্ত হওয়া নিহত বাংলাদেশিরা হচ্ছেন জামান অনিরুদ্ধ, তাহিরা তানভীন শশী, মিনহাজ বিন নাসির, রাকিবুল হাসান, মতিউর রহমান, রফিক উজ জামান, তামারা প্রিয়ংময়ী, আকতার বেগম, হাসান ইমাম, এসএম মাহমুদুর রহমান, বিলকিস আরা, বিমানটির পাইলট ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশিদ ও কেবিন ক্রু খাজা সাইফুল্লাহ।

এর আগে কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুর্ঘটনায় নিহত যেসব বাংলাদেশিকে শনাক্ত করা হবে, তাদের লাশ মঙ্গলবার দেশে পাঠানো হবে।

গত ১২ মার্চ ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয় ইউএস বাংলার ফ্লাইট বিএস২১১। এতে উড়োজাহাজের ৭১ আরোহীর মধ্যে ৫১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যুর তালিকায় ফ্লাইটটির পাইলট, কো-পাইলট, ক্রুসহ ২৬ বাংলাদেশি আরোহী রয়েছেন।

রবি