খালেদার জামিন বিষয়ে শুনানি শেষ, আদেশ সোমবার

সময়ের কণ্ঠস্বর- জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত চেয়ে আবেদনের ওপর আগামীকাল সোমবার আদেশ দেবেন আপিল বিভাগ।

রোববার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এর আগে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের নিয়মিত আপিলের আবেদনের (লিভ টু আপিল) শুনানি হয়।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)-এর পক্ষ থেকে খালেদা জিয়ার জামিন আদেশের বিরুদ্ধে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান এবং রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহাবুবে আলম। এরপর জামিনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এজে মোহাম্মদ আলী। শুনানি শেষে প্রথমে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত আদালত মূলতবি রাখা হয়। পরে এ সিদ্ধান্ত জানান আপিল বিভাগ।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া হলে মূল আপিলের আর কখনো শুনানি হবেনা। হাইকোর্ট চারমাসের মধ্যে পেপারবুক করার নির্দেশ দিয়েছ। আপিল বিভাগ সেটি কমিয়ে দুই মাস করে দিতে পারে। পেপারবুক প্রস্তুত হলেই মূল আপিলের শুনানি করতে হবে। দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব্যের পর খালেদা জিয়ার পক্ষে এ জে মোহাম্মদ শুনানি শুরু করেন।

এদিকে জামিন শুনানিকে কেন্দ্র করে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। প্রধান ফটকসহ আদালত ভবনে প্রবেশের সব ফটকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আইনজীবী ও সাংবাদিকদেরকে কার্ড প্রবেশের পর অনেককে আদালত কক্ষে প্রবেশ করতে হয়েছে। সব মিলিয়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে বলে মনে করেন আইনজীবীরা।

আদালত সংশ্লিষ্টরা জানান, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় আপিল বিভাগ থেকে জামিন পেলেও শিগগিরই মুক্তি পাচ্ছেন না খালেদা জিয়া। কারণ কুমিল্লার একটি নাশকতার মামলায় খালেদা জিয়াকে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট (পিডব্লিউ) দেখানো হয়েছে।

আগামী ২৮ মার্চ ওই মামলায় তাকে হাজির করার জন্য কারাগারে এ সংক্রান্ত হাজিরা পরোয়ানা পাঠানো হয়েছে। সে ক্ষেত্রে ওই মামলায় জামিন না হওয়া পর্যন্ত খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন না।
রবি