সংবাদ শিরোনাম
গাজীপুরে দীর্ঘ সময় মর্গে লাশ ফেলে রাখার অভিযোগে হামলা এবং ভাংচুর, আটক-৩ | দুর্দান্ত খেলেও ভারতকে হারাতে পারলো না বাংলাদেশ | বুয়েটে বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ব্যানার থেকে মুছে ফেলা হলো ছাত্রলীগের নাম | ভারতের বিপক্ষে ১-০ গোলে এগিয়ে বাংলাদেশ | ‘বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকারীদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত’- কাদের | বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির সাবেক ৭ এমডিসহ ২৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা | সাভার থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের এক সদস্য আটক | পাবনায় ছেলের পাথরের আঘাতে বাবার মৃত্যু | বশেমুরবিপ্রবি’র প্রভোষ্ট ও বিভিন্ন অনুষদের চেয়ারম্যানসহ ৭ জনের পদত্যাগ | অবৈধ স্থাপনা সরাতে সাবেক সাংসদ উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৪ জনকে নোটিশ |
  • আজ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সিলেট-২ আসন: দীর্ঘদিন পর দুই চৌধুরীর সখ্যতা

৬:১০ অপরাহ্ণ | সোমবার, মার্চ ১৯, ২০১৮ মফস্বল সংবাদ, মফস্বল সংবাদ

জয়নাল আবেদীন,ওসমানীনগর(সিলেট)থেকে: দীর্ঘদিন পর এক মঞ্চে দেখা গেল সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী এবং যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীকে। রাজনীতির মাঠে দীর্ঘ দিন ধরে এই দুই চৌধুরীর মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রাপ্তির দৌড়েও রয়েছেন তারা।

গত শনিবার যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম দিন উদযাপন অনুষ্ঠানে এই দুই চৌধুরী একে অপরকে মিষ্টিমুখ করান। সামাজিক যোগাযোগাগের মাধ্যম ফেসবুকে এমন দৃশ্যের স্থীরচিত্র প্রকাশ পেলে তা মুহূর্তেই ভ্ইারাল হয়ে পড়ে। বিষয়টিকে অনেকেই ভালো চোখে নিয়ে দুই নেতাকে অভিনন্দন যানাচ্ছেন। নেতাকর্মীদের ধারণা এই দুই নেতা এক সাথে থাকলে সিলেট-২ আসন আওয়ামী লীগের দখলে আসতে বেগ পেতে হবে না।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি এই দুই চৌধুরী। রাজনীতির মাঠে তারা একে অপরের প্রতিপক্ষ। নির্বাচনী এলাকায় তাদের নের্তৃত্বে পরিচালিত হচ্ছে দুটি গ্রæপ। এক দলের হলেও দু’গ্রæপের নেতাকর্মীদের মধ্যে অহিনকুল সম্বন্ধ চলে আসছে।

বিগত সময়ে স্থানীয় পর্যায়ের প্রায় প্রতিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভরাডুবির অন্যতম কারণ ছিল তাদের গ্রæপিং কট্টরতা। নিজেরা নিজেদের প্রতিপক্ষ হওয়ায় দীর্ঘ দিন ধরে ইউনিয়ন ও উপজেলা পরিষদের জনপ্রতিনিধির চেয়ার গুলো রয়েছে অন্যদলের নেতাকর্মীদের দখলে।এতে অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন নেতাকর্মীরা।

এক সময় এই দুই চৌধুরীর মধ্যে খুব সখ্যতা ছিল। যার কারণে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী এম ইলিয়াস আলীকে পরাজিত করে প্রথম বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হতে সক্ষম হন শফিকুর রহমান চৌধুরী। এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্কে ফাটল দেখা দিলে এলাকায় প্রকাশ্যে শফিকুর রহমান ও আনোয়ারুজ্জামান বলয় সৃষ্টি হয়।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই দুই চৌধুরী দলীয় মনোনয়ন দাবি করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেয়া হয়।আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী অনুসারী ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদাল মিয়া বলেন, দুই নেতাকে একমঞ্চে দেখে ভালো লাগছে।

রাজনীতির জন্য এটি শুভ ইঙ্গিত। শফিকুর রহমান চৌধুরী অনুসারি ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান বলেন,রাজনীতির জন্য এটা ভাল মেরুকরণ। এতে আমরা উল্লাসিত। কে দলীয় মনোনয়ন পাবে সেটা বড় কথা নয়, সবাই একত্রে থেকে নির্বাচন করলে খুব সহজে এই আসনটি পুণঃরুদ্ধার করতে পারবো।