ফাঁসির ১২ বছর পর সাদ্দাম হোসেনের কবর নিয়ে রহস্য!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

সাদ্দাম হোসেনের ফাঁসির কেটে গেছে ১২ বছর। এবার তার কবর নিয়ে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর সাদ্দামের নিজ গ্রাম আল-আওজাহ’য় তাকে দাফন করা হয়।

কিন্তু কবরে সাদ্দামের মৃতদেহ আছে কিনা তা নিয়েও চলছে তর্ক-বিতর্ক। অনেকের ধারণা, সাদ্দামের কবর খোলা হয়েছিল। আবার অনেকে মনে করেন, সাদ্দামের মেয়ে হালা তার মৃতদেহ জর্ডানে নিয়ে গেছেন। কিন্তু একজন অধ্যাপকের উদ্ধৃতি দিয়ে উগান্ডার পত্রিকা মনিটর জানাচ্ছে, এটা অসম্ভব।

ওই অধ্যাপক বলেন, হালা কখনই ইরাকে আসেননি। তবে সাদ্দামের মৃতদেহ কোনো গোপন স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়ে থাকতে পারে। সাদ্দামের কবর তার বাবার কবরের মতো উড়িয়ে দেয়া হয়েও থাকতে পারে।

কিন্তু যারা বিশ্বাস করেন যে, ইরাকের স্ট্রংম্যান এখন জীবিত আছেন; তারা এমনটা মানতে নারাজ। তেমনই একজন হচ্ছেন বাগদাদের বাসিন্দা আবু সামের। তিনি বলেন, সাদ্দাম মারা যাননি, তার একটি ডাবলকে ফাঁসি দেয়া হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, ইরাকি শাসকের ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ সাদ্দামের মৃতদেহ উত্তরাঞ্চলীয় শহর তিকরির আল আওজাহ’য় নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছিলেন।

সাদ্দামের কবর ইরাকি শিয়া মিলিশিয়াদের হামলায় ধ্বংস হয়ে যায় বলে এর আগে ঘোষণা করা হয়েছিল। এ নিয়ে জল্পনার অবসান কবে হবে তা কেউ বলতে পারছেন না।

Leave a Reply