মধ্যরাতে ২০ ছাত্রীকে সুফিয়া কামাল হল ত্যাগে বাধ্য করল প্রশাসন

সময়ের কণ্ঠস্বর- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কবি সুফিয়া কামাল হলের ২০ ছাত্রীকে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে হল ত্যাগে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে হল প্র্রশাসনের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর মধ্যরাত পর্যন্ত হল কর্তৃপক্ষ ছাত্রীদের একের পর এক বের করে দেয়।

হলের দারোয়ান ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, অন্তত ২০ জন অভিভাবক সুফিয়া কামাল হল থেকে তাদের সন্তানদের নিয়ে গেছেন। ছাত্রীদের নিয়ে যাওয়ার সময় তাদের (অভিভাবক) কারও সঙ্গে কথা বলতে নিষেধ করে দেয়া হয়। ফলে অভিভাবকরা সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি। ছাত্রীদের হল থেকে বের করে দেয়ার খবরে রাত সোয়া ২টার দিকে কোটা সংস্কার দাবিতে গড়ে ওঠা সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ও যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুরসহ ১৫-২০ জন আন্দোলনকারী সুফিয়া কামাল হলের সামনে জড়ো হন। তারা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু/আমার বোন পথে কেন/প্রশাসন জবাব চাই/গভীর রাতে আমার বোন বাইরে কেন/প্রশাসন জবাব চাই’ স্লোগান দেন। হাসান আল মামুন যুগান্তরকে বলেন, এটি দুঃখজনক ব্যাপার। গভীর রাতে ছাত্রীদের বিনা কারণে হল থেকে বের করে দেয়ার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর রাত আড়াইটায় সাংবাদিকদের বলেন, আগামীকাল (আজ) বিকাল ৪টায় সারাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে।

তারা বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ঘিরে ছাত্রীদের এ হয়রানি করা হচ্ছে। গত ১০ই এপ্রিল রাতে ছাত্রলীগের হল সভাপতি এশার হাতে কয়েক শিক্ষার্থী নির্যাতনের শিকার হন। পরে শিক্ষার্থীরাও তাকে লাঞ্চিত করে। এ ঘটনায় প্রথমে এশাকে বিশ্ববিদ্যালয় ও ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হলেও পরে তা প্রত্যাহার হয়। অন্যদিকে, এশাকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় ২৬ ছাত্রলীগ কর্মীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। ২৬ ছাত্রীকে শোকজ করে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ। আর এ ঘটনার জেরেই সর্বশেষ ২০ শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দেয়ার ঘটনা ঘটলো।

সময়ের কণ্ঠস্বর/মহিআ

Leave a Reply