ঝাঁকড়া চুলে সুরের ইন্দ্রজালে ময়মনসিংহ মাতালেন ‘গুরু’ জেমস

আব্দুল মান্নান পল্টন, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি- সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড জনগণের সামনে তুলে ধরতে নগরীর সার্কিট হাউজ মাঠে অনুষ্ঠিত কনসাটে যাদুর সুরের ইন্দ্রজালে লাখো দর্শকদের মনোমুগ্ধ করেছেন ভক্তদের কাছে ‘গুরু’ খ্যাত নগর বাউল (জেমস)।

কোঁকড়ানো ঝাঁকড়া চুলের এ রকস্টার কাঁধে গিটার ঝুলিয়ে ‘টুংটাং’ শব্দে সুর তুলেই গাইতে শুরু করেন ‘কবিতা তুমি স্বপ্নচারিণী হয়ে খবর নিও না’। কণ্ঠের জাদুকরী স্পর্শে দর্শকের মন মাতিয়ে উচ্ছ্বল তারুণ্যের হৃদয় হরণ করতে তিনি বিরতিহীনভাবে গেয়েছেন ৭টি সেরা জনপ্রিয় গান। গানের সুরে উম্মাতাল দর্শকরাও নগর বাউলের সাথে ঠোঁট মিলিয়েছেন, নেচেছেন, মাথা দুলিয়েছেন, করতালিও দিয়েছেন।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়েরর উদ্যোগে ময়মনসিংহ নগরির রফিক উদ্দন ভুইয়া স্টেডিয়ামে এ কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত সুরের যাদুতে ময়মনসিংহবাসীকে আচ্ছন্ন করে রাখেন উপমহাদেশে তারুণ্যের আইকন বাংলার অদ্বিতীয় শিল্পী জেমস।

নগর বাউল ব্যান্ডের প্রধান গিটারিস্ট ও ভোকালিস্ট মাহফুজ আনাম, যাকে মানুষ জেমস বলেই জানে তিনিও তার জীবনের সেরা গান গুলি গেয়ে দর্শকদের মাঝে হৈ চৈ ফেলে দেন। সন্ধ্যার আগে প্রথমে ময়মনসিংহের স্থানীয় শিল্পীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন। এরই ফাঁকে ফাঁকে চলে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রামাণ্যচিত্র।

মাগরিবের নামাজের পর মঞ্চে আসে লালন ব্যান্ড। ‘এ শহর এলোমেলো’ দিয়ে শুরু করে ‘সময় গেলে সাধন হবে না, আমি অপার হয়ে বসে আছি, আর কী হবে মানব জনম এসব জনপ্রিয় গান শুনিয়ে দর্শকদের মাঝে মুগ্ধতা ছড়ান ব্যান্ডের ভোকালিস্ট সুমি ও তার সঙ্গীরা। সন্ধ্যার পরপরই স্টেডিয়াম দর্শকে পরিপুর্ন হয়ে উঠে। ভিতরে তিল ধারণের জায়গাটুকু না থাকায় স্টেডিয়ামের বাইরের চারপাশেও ছিল মানুষের ঢল।

অতিরিক্ত মানুষের ভীড় ও জেমসকে দেখতে হাজার হাজার মানুষের শৃঙ্খলা ও ব্যারিকেড’র প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলার ভয়াবহ প্রতিযোগীতা সামাল দিতে গিয়ে পুলিশের অতিরিক্ত এসপি আল-আমিনসহ বেশ কয়েকজন পুলিশের সদস্যও প্রচন্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

মঞ্চের উপস্থাপিকা ছিলেন অভিনেত্রী তানিয়া হোসেন। সবশেষে আসে চিরকুট ব্যান্ড। নিজেদের বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন ‘চিরকুটে’র সুমী।

সময়ের কণ্ঠস্বর/মহিআ

Leave a Reply