বগুড়ায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বাস চাপায় শিশু সুমির হাত বিচ্ছিন্ন

নজরুল  ইসলাম, বগুড়া প্রতিনিধি: আসলেন মন্ত্রী, হাসপাতালের চিকিৎসক ও ভিআইপি ডিউটিতে মহাব্যস্ত পুলিশ, সড়কে যানবাহন চলাচলে গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণে নেই ব্যবস্থা।  হাসপাতালে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই আহত শিশুকে নিয়ে ছোটাছুটি, তবুও শেষ রক্ষা হলো না অবশেষে শরীর থেকে হাত বিচ্ছিন্ন করা হলো।

রোববার দুপুরে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ফুলতলা সড়কে বেপরোয়া গতির একটি বাস শিশু সুমিকে ধাক্কা দিলে শরীর থেকে একটি হাত বিচ্ছিন হয়ে যায়। শিশু বর্তমানে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। সে ফুলতলার হতদরিদ্র দুলাল হোসেনের কন্যা।

স্থানীয়রা জানান, শিশু সুমি বাড়ীর পাশে ফুলতলা এলাকার সড়কে দাড়িয়ে ছিল। একপর্যায়ে সে রাস্তা পারাপার করতে গেলে অজ্ঞাত একটি বাস বেপরোয়া গতিতে এসে সুমিকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে শিশুটি মারাত্মকভাবে আহত হয়। রক্তাক্ত অবস্থায় সুমিকে উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করার পরপরই শরীর থেকে বাঁ হাত কেটে বাদ দেয় চিকিৎসকরা। পরে শিশু সুমির শরীরের বিভিন্নস্থানে একাধিক অস্ত্রপ্রচার করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধিন সুমির অবস্থা আশংকাজনক।

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) রফিকুল ইসলাম সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘাতক বাসটি আটক করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে শেরপুরে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এসময় স্থানীয় সংসদ সদস্য হাবিবর রহমান, বগুড়া জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকী, জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিন, সাধারন সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু, বগুড়া বিএমএর সভাপতি ডা. মোস্তফা আলম নান্নু, শেরপুর পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তার, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন।

৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় রুপান্তরিত ও ট্রমা সেন্টারের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। মন্ত্রীর উদ্বোধনী বক্তব্যের সময় আহত শিশুকে নিয়ে হাসপাতালে ছোটাছুটি করলেও চিকিৎসক পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

 

Leave a Reply