তদন্ত করে ডিসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর- দায়িত্ব পালনকালে দুই সাংবাদিকের ওপর হামলায় নির্যাতনকারী পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। 

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি সদর দফতরে সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনায় স্মারকলিপি প্রদানকালে সাংবাদিকদের এ আশ্বাস দেন ডিএমপি কমিশনার।

এর আগে দায়িত্বরত সাংবাদিকদের উপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বেলা ১২ টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করে কর্মরত সাংবাদিকরা। পরে ডিএমপি কমিশনারকে চার দফা দাবিতে একটি স্মারকলিপি দেন সাংবাদিকরা।

গতকাল সোমবার দুপুরের দিকে নয়াপল্টন এলাকায় বিক্ষোভ করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি। দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে বেসরকারি টেলিভিশন বাংলা টিভির সাংবাদিক আরমান কায়সার ও ক্যামেরাপারসন মানিকের ওপর চড়াও হন মতিঝিল জোনের ডিসি আনোয়ার হোসেন। সংবাদ সংগ্রহের সময় পুলিশের এমন আচরণের প্রতিবাদে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন গণমাধ্যমের শতাধিক সংবাদিক অংশ নেন।

মানববন্ধন শুরুর একপর্যায়ে ডিএমপির উপকমিশনার (ডিসি-মিডিয়া) মাসুদুর রহমানের অনুরোধে সাংবাদিকদের কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করা হয়। এরপর সাংবাদিকদের তরফ থেকে একটি স্মারকলিপি নিয়ে ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়ার কার্যালয়ে যান সিনিয়র সাংবাদিকরা।

এ সময় ডিএমপি কমিশনার সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত। এ ধরনের ঘটনা যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য ইতোমধ্যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিএমপি কমিশনারকে দেয়া স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, সোমবার নয়াপল্টন এলাকায় বিএনপির মিছিলের সংবাদ সংগ্রহের সময় বাংলা টিভির রিপোর্টার আরমান ও ক্যামেরাপারসন মানিক নির্যাতনের শিকার হন। এতে নেতৃত্ব দেন পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার আনোয়ার হোসেন ও তার ফোর্স।

স্মারকলিপিতে বাংলা টিভির রিপোর্টার ও ক্যামেরাপারসন নির্যাতনকারী পুলিশের শাস্তি, অতীতের সকল সাংবাদিক নির্যাতনের সুষ্ঠু তদন্ত ও শাস্তি, সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও ডিএমপিতে কর্মরত পুলিশকে আচরণ বিধি মেনে চলার নির্দেশ দিতে কর্তৃপক্ষকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে সাংবাদিকরা।

‘দায়িত্বরত অবস্থায় একজন সংবাদকর্মীকে যেভাবে প্রকাশ্যে নির্যাতন করা হয়েছে। একটা পেশাদার বাহিনীর জন্য তা লজ্জার। গত তিন বছরে ঢাকায় পুলিশ কর্তৃক আরো বেশ কয়েকটি সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। নামমাত্র তদন্ত কমিটি গঠন এবং ক্লোজড করার মতো হাস্যকর কিছু শাস্তির ব্যবস্থাই শুধু দেখা গেছে এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে’- বলা হয়েছে স্মারকলিপিতে।

সাংবাদিকতা একটি মহৎ ও মহান পেশা উল্লেখ করে এতে আরো বলা হয়, কোনো সাংবাদিক দায়িত্বরত অবস্থায় পুলিশ সদস্যকে লাঞ্চিত করেছে এমন ঘটনা ইতিহাসে দুষ্কর।

Leave a Reply