আবারও পেছালো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ

রবিউল ইসলাম (রবি), সময়ের কণ্ঠস্বর- আগামী ৪ মে দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করার কথা থাকলেও সেটি হচ্ছেনা বলে জানিয়েছেন ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেছেন, প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের নির্মাণকাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। ‘এ স্যাটেলাইটের’ উৎক্ষেপণ করার জন্য নতুন করে ৭ মে সম্ভাব্য তারিখ ঠিক করা হয়েছে।

আজ বুধবার সকালে বিটিআরসির সভাকক্ষে টিআরএনবি আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট : সম্ভাবনার মহাকাশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব তথ্য জানান।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি ‘স্পেসএক্স’ এর ফ্যালকন-৯ রকেটের মাধ্যমে গত বছরের ১৬ ডিসেম্বরে ফ্লোরিডার কেইপ কেনাভেরালের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি চলছিল।

কিন্তু হারিকেন আরমায় ফ্লোরিডায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় ওই লঞ্চ প্যাড থেকে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ বন্ধ থাকে। ফলে বিভিন্ন দেশের স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ পিছিয়ে যায় এবং বাংলাদেশ সূচির জটে পড়ে।

তখন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ জানান, আগামী মার্চের কোনো এক সময় স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপ করা হবে।

কিন্তু মার্চে শাহজাহান মাহমুদ জানান, আবহাওয়া ও পারিপার্শ্বিক কিছু কারণে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের তারিখ নির্দিষ্ট করে আগে থেকে বলা সম্ভব হয় না। তবে আমরা কাছাকাছি পৌঁছে গেছি। এটুকু বলতে পারি, ৭ এপ্রিল থেকে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হবে।

এপ্রিলেও নিজস্ব স্যাটেলাইটের অধিকারী বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসাবে বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশ না করতে পেরে আগামী ৪ মে ফ্লোরিডার লঞ্চ প্যাড থেকে উৎক্ষেপণ করা বলে জানিয়েছিলেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ। 

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের নির্মাণ কাজ চলে ফ্রান্সের থালেস এলিনিয়া স্পেস ফ্যাসিলিটিতে। এটি তৈরির জন্য ২০১৫ সালের ১১ নভেম্বর বিটিআরসির সঙ্গে টার্ন কি পদ্ধতি কোম্পানিটির চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা।

সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এক হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা এবং অবশিষ্ট এক হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা বিডার্স ফাইনান্সিং-এর মাধ্যমে ব্যয় সংকুলান হয়েছে।

Leave a Reply