‘গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে না’

সময়ের কণ্ঠস্বর- প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে. এম. নুরুল হুদা বলেছেন, ‘সংসদ নির্বাচন সন্নিকটে। সেইসঙ্গে ঢাকার পাশের সিটি করপোরেশন গাজীপুর এবং খুলনায়ও নির্বাচন হবে। নির্বাচনগুলোকে কমিশন অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছে। গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশনের নির্বাচনকে জাতীয় নির্বাচনের মতোই সমান গুরুত্ব দিয়ে দেখছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

রাজধানীর আগারাগাঁওয়ে আজ বৃহস্পতিবার নির্বাচন ভবনের সম্মেলন কক্ষে দুই সিটির নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকের শুরুতে সিইসি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশনের আসন্ন নির্বাচন সফল করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা চান।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, আসন্ন গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচন করপোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করা হবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েয়ে নির্বাচন কমিশন।

তিনি বলেন, সাধারণত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করা হয় না। এবারও হবে না। তবে পর্যাপ্তসংখ্যক নিয়মিত বাহিনীর (পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি, আনসার) সদস্য থাকবেন।

সিইসির সভাপতিত্বে বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত রয়েছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, ‘বিগত দিনে আপনাদের সহযোগিতায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনসহ অন্যান্য নির্বাচন সফল হয়েছে। আশা করি, এই নির্বাচনও সফল হবে। এ জন্য আপনাদের পরামর্শ প্রত্যাশা করছি।’

আগামী ১৫ মে খুলনা ও গাজীপুর সিটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড নিয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৪২৫ জন। অন্যদিকে ৩১টি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড নিয়ে খুলনা সিটি করপোরেশনের ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৯৩ হাজার ৪৫৪ জন।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে সাতজন, ৫৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ২৫৬ জন ও ১৯টি সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৮৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ সিটিতে মেয়র প্রার্থীরা হলেন—আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের মো. জাহাঙ্গীর আলম, ২০ দলীয় জোট ও বিএনপি মনোনীত হাসান উদ্দিন সরকার, ইসলামী ঐক্যজোটের ফজলুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কাজী মো. রুহুল আমিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদ।

খুলনা সিটিতে মেয়র ও কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিলিয়ে মোট ১৯১ প্রার্থী নির্বাচনের চূড়ান্ত লড়াইয়ে মাঠে রয়েছেন। মেয়র প্রার্থী পাঁচজন, ১৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৪৮ জন কাউন্সিলর এবং চারটি সংরক্ষিত আসনে ৩৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মেয়র পদে যে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তাঁরা হলেন—আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেক, বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু, জাতীয় পার্টির এস এম শফিকুর রহমান মুশফিক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের অধ্যক্ষ মাওলানা মুজাম্মিল হক এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) মিজানুর রহমান বাবু।

Leave a Reply