রাজীবের পরিবারকে ক্ষতিপূরণে আপিল বিভাগের আদেশ সোমবার

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: রাজধানীর কারওয়ান বাজারে দুই বাসের চাপায় ডান হাত হারানো নিহত তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হাসানের পরিবারকে ১ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিষয়ে আপিল বিভাগের আদেশ সোমবার হবে বলে জানা গেছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৭ মে) বেলা ১০টায় আদালত সূত্র এ কথা জানায়।

এর আগে রাজধানী ঢাকাতে দুই বাসের রেষারেষিতে হাত হারানোর পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীবের দুই ভাইকে ক্ষতিপূরণ না দিতে আপিল করেছিল বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ।

আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করেছিলেন বলে জানিয়েছিলেন বিআরটিসির আইনজীবী ব্যারিস্টার মুনীরুজ্জামান।

তিনি জানিয়েছিলেন, রবিবার চেম্বার আদালতে এ আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চাওয়ার বিষয়ে মুনীরুজ্জামান বলেছিলেন, কার দায় কতটুকু সেটা পরিমাপ না করে ক্ষতিপূরণের আদেশ দেওয়া হয়েছে। আর এ ধরনের ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালে আবেদন করতে হয়। আর বিআরটিসি সরকারের টাকায় চলে। তারা কীভাবে ক্ষতিপূরণ দেবে? এসব কারণে হাইকোর্টের আদেশের বিআরটিসির অংশ স্থগিত চাওয়া হয়েছে আবেদনে।

এর আগে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের বেঞ্চ ৮ মে স্বজন পরিবহন ও বিআরটিসি কর্তৃপক্ষকে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দেন। এক মাসের মধ্যে দুই বাস কর্তৃপক্ষ ২৫ করে ৫০ লাখ টাকা ব্যাংক হিসাবে জমা দিতে বলা হয়। ২৫ জুন এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৩ এপ্রিল বিআরটিসি ও স্বজন পরিবহনের দুই চালকের বেপরোয়া বাস চালানোর শিকার হয়ে হাত কাটা পড়ে রাজীবের। এরপর আশংকাজনক অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন ঢাকার সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে দেখা যায় পাশাপাশি লেগে থাকা দুটি বাসের মধ্যে ঝুলে আছে বিচ্ছিন্ন একটি হাত।

বিচ্ছিন্ন হাতের সেই ছবি দেখে আঁতকে উঠেছেন বহু মানুষ। সামাজিক মাধ্যমে চাঞ্চল্য এবং বিতর্ক সৃষ্টি করে ঘটনাটি। এরপর ৪ঠা এপ্রিল একটি রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৭ই এপ্রিল রাজীব মারা যান।