পর্ন তারকার অভিযোগ সত্য, অবশেষে স্বীকার করে নিলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- চলতি বছরের শুরুতে বিতর্কিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের কথা ফাঁস করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস। তার কদিন পরেই তিনি জানিয়েছিলেন, তাদের যৌন সম্পর্ক গোপন রাখার জন্য ট্রাম্প নাকি তাকে হুমকিও দিয়েছিলেন।

২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ক্ষমতায় আসার ১১ দিন আগে চুপ থাকার জন্য তাকে একটি চুক্তিতে সই করিয়ে নেয়া হয়েছিল বলে দাবি করেছেন ওই পর্নস্টার। বিনিময়ে তাকে নাকি এক লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার দেয়া হয়েছিল। বাংলাদেশি টাকায় যেটা এক কোটি টাকারও বেশি।

তবে এত দিন ট্রাম্প বলে এসেছেন, মুখ বন্ধ রাখার জন্য পর্নো তারকা স্টর্মিকে যে ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার তাঁর ব্যক্তিগত আইনজীবী মাইকেল কোহেন প্রদান করেন, সে সম্পর্কে তিনি বিন্দুবিসর্গ জানেন না। গত এপ্রিলের শুরুতে তিনি সাংবাদিকদের পরামর্শ দিয়েছিলেন এ বিষয় নিয়ে কোহেনের সঙ্গে কথা বলতে।

গতকাল বুধবার জানা গেল, বিষয়টা তিনি কেবল জানতেনই না, সময়মতো কোহেনকে সে অর্থ ফেরতও দিয়েছেন। ২০১৭ সালের আর্থিক আয়-ব্যয়ের হিসাবে ট্রাম্প জানিয়েছেন, কোহেনকে তিনি মোট যে অর্থ দিয়েছেন, তা এক লাখ থেকে আড়াই লাখ ডলার হবে। দেনা হিসেবে দেখানো এই হিসাবপত্রে স্টর্মির নাম নেই, তবে অর্থটা যে এই পর্নো তারকার মুখ বন্ধ রাখতে কোহেনকে দেওয়া হয়েছে, তাতেও কোনো সন্দেহ নেই। অর্থের পরিমাণ থেকেই সে কথার প্রমাণ মেলে। কোহেনের কাছ তাঁর দেনা ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার হলেও তাঁকে যে সে অঙ্কের বাইরে শোধ করা হয়, তা সম্ভবত অন্য কারও মুখ বন্ধ রাখতে অথবা অন্য কোনো ‘ঝামেলা’ মেটাতে দেওয়া হয়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

এর আগে ট্রাম্পের নতুন ব্যক্তিগত আইনজীবী জুলিয়ানি জানিয়েছিলেন, কোহেনের সঙ্গে ট্রাম্প করপোরেশনের মাসিক ৩৫ হাজার ডলার বেতন দেওয়ার চুক্তি রয়েছে। সেই অর্থ থেকেই কোহেনের পাওনা মিটিয়ে দেওয়া হয়েছে। ট্রাম্পের আয়-ব্যয়ের হিসাব পাওয়ার পর দেখা যাচ্ছে, জুলিয়ানির সেই কথাও মিথ্যা। কোহেন অবশ্য নিজে দাবি করেছিলেন, বাড়ি বন্ধক রেখে স্টর্মিকে অর্থ বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। এ ব্যাপারে ট্রাম্প বা তাঁর কোম্পানি কিছু জানে না। সে কথাও যে মিথ্যা, এখন ট্রাম্প নিজেই তা ফাঁস করে দিলেন।

কোনো প্রয়োজন না থাকলেও স্বচ্ছতার খাতিরে তিনি এই তথ্য প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প। কিন্তু সরকারের নীতিবিষয়ক দপ্তরের প্রধান এক চিঠিতে বিচার বিভাগকে জানিয়েছেন, এই দেনার কথা প্রকাশ মোটেই ঐচ্ছিক নয়, প্রেসিডেন্টকে সে কথা অবশ্যই জানাতে হবে। প্রেসিডেন্টের আয়-ব্যয় নিয়ে কোনো তদন্তে এই তথ্য গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণিত হতে পারে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, পর্ন স্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস দাবি করে আসছিলেন, ২০০৬ সাল থেকেই ট্রাম্পের সঙ্গে তার যৌন সম্পর্ক ছিল। এর আগে চলতি বছরের মার্চে পর্ন তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলস ‘গোপনীয় চুক্তিতে’ স্বাক্ষর না করায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে লস অ্যাঞ্জেলসের কোর্টে একটি মামলা করেন।

তিনি এক বিবৃতিতে বলেছেন, আমার সঙ্গে ট্রাম্পের যে চুক্তি হয়েছিল, তা বাতিল হয়ে গেছে। তার সাথে আমার গোপন সম্পর্কের বিষয়ে আমি এখন প্রকাশ্যে আলোচনা করতে পারি।