নিষিদ্ধ ছবির ফাঁদে পড়ে যুবকের ‘ভয়ানক’ পাগলামী! জায়গা হলো হাসপাতালে

চিত্র-বিচিত্র ডেস্কঃ পর্নো বা নিষিদ্ধ ছবির প্রতি আসক্তি যে মানসিক ও শারীরিক সুস্থতার জন্য কতটা ক্ষতিকর তা বলার অপেক্ষা রাখে না। নিষিদ্ধ এই জগতের প্রতি উঠতি বয়সী যুবক থেকে মধ্যবয়সীদেরও যে আলাদা একটা আসক্তি আছে সেটাও অস্বীকার করার উপায় নেই। অনেকেই ওসব দেখার জন্য নানা পদ্ধতি অবলম্বন করেন। তবে বাস্তবে যে এগুলো কতটা ক্ষতিকর হতে পারে তা টের পেলেন থাইল্যান্ডের ৩০ বছরের যুবক। নিষ্দ্ধি ভিডিও দেখতে গিয়ে উত্তেজনার বশে এমন কান্ড ঘটালেন, রাতবিরেতে পুলিশ ও ডাক্তার পর্যন্ত ডাকতে হল। শেষমেশ ঠাঁই হল হাসপাতালের বিছানায়।এমনই এক খবর দিয়েছে কলকাতা থেকে প্রকাশিত সংবাদ প্রতিদিন।

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের খেট নং চক জেলায় তিরিশ বছর বয়সী এক যুবক নিষিদ্ধ ছবি দেখতে দেখতে উত্তেজিত হয়ে রান্নাঘর থেকে ছুরি এনে পুরুষাঙ্গে ঘষতে গিয়ে কেটে ফেলেছেন তার পুরুষাঙ্গ! তবে ওই যুবকের নাম জানাতে চায়নি স্থানীয় পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, জেলার এক আবাসনে চারতলার ফ্ল্যাটে থাকেন ওই যুবক। মঙ্গলবার রাতে নিজের ফ্ল্যাটে বসেই নিষিদ্ধ ছবি দেখছিলেন তিনি। কোনও এক বন্ধুর থেকে সংগ্রহ করেছিলেন ওই বিকৃত যৌনতার ভিডিওটি। তা দেখতে দেখতেই উত্তেজিত হয়ে পড়েন তিনি। ভিডিও দ্বারা প্রভাবিত হয়ে রান্নাঘর থেকে ছুরি এনে পুরুষাঙ্গে ঘষতে গিয়েই কেটে যায় পুরুষাঙ্গ। পুরো বিছানা রক্তে ভেসে যায়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে আপদকালীন নম্বরে ফোন করেন তিনি। ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। খবর দেওয়া হয় কাছের হাসপাতালে। এসে পৌঁছায় অ্যাম্বুল্যান্স।

 

 

স্বাস্থ্যকর্মীরা জানান, সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় যুবককে উদ্ধার করা হয়। প্রথমে কোনওভাবেই সহযোগিতা করছিলেন না তিনি। কীভাবে এমন কাণ্ড ঘটল, কিছুতেই সে বিষয়ে কিছু জানাতে চাইছিলেন না। পরে বিপদ বুঝে সত্যিটা বলেন। স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে তাঁকে।