জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে বিএনপির ১০ দিনের কর্মসূচি

সময়ের কণ্ঠস্বর- দলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৭তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ১০দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। আগামী ২৫শে মে থেকে আগামী ৫ই জুন পর্যন্ত এই কর্মসূচি পালিত হবে।

বৃহস্পতিবার (১৭ মে) দুপুরে দলের যৌথসভা শেষে রাজধানীর নয়াপল্টনের বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মির্জা আলমগীর বলেন, এখন আমরা দুদিনের কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বাকিগুলো আপনাদের পরে জানিয়ে দেয়া হবে। দুদিনের কর্মসূচি হলো ২৯শে মে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে। ৩০ শে মে সকাল ১০টায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও কবর প্রাঙ্গণে মিলাদ মাহফিল, আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও বইমেলা। একইদিন বিএনপির নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করবে এবং নেতা-কর্মীরা কালো ব্যাজ বুকে ধারণ করবে।

৩০শে মে ঢাকা মহানগরের প্রতিটি থানায় দুস্থ ব্যক্তিদের মধ্যে কাপড় ও ইফতারসামগ্রি বিতরণ করা হবে। নয়াপল্টনে ড্যাবের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প করা হবে। ছাত্রদলের উদ্যোগে জাতীয় প্রেস ক্লাবে জিয়াউর রহমানের ওপর আলোকচিত্র প্রদর্শনী হবে। বিভাগীয় শহরগুলোতে জিয়া স্মৃতি পাঠাগারের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হবে বইমেলা।

এছাড়া কেন্দ্রীয়ভাবে বিএনপি পোস্টার প্রকাশ, পত্রপত্রিকা ও অনলাইনে প্রকাশ করবে বিশেষ ক্রোড়পত্র।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে যৌথসভায় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, বিলকিস জাহান শিরিন, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কেন্দ্রীয় নেতা জয়নাল আবেদীন, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, আসাদুল করীম শাহিন, মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদ, জন গোমেজ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ১৯৮১ সালে ৩০ মে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে সেনাবাহিনীর একদল সদস্যদের অভ্যুত্থানে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান শহীদ হন। সেই থেকে বিএনপি এই দিনকে শাহাদাৎ দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।