রাজধানীতে ৪০ মণ খেজুর ও রাসায়নিকে পাকানো ১হাজার মণ আম ধ্বংস: ৯জনের কারাদণ্ড

মহিবুল্লাহ্ আকাশ, সময়ের কণ্ঠস্বর- রাজধানীর যাত্রাবাড়ির একটি ফলের আড়তে অভিযান চালিয়ে ক্ষতিকারক রাসায়নিক ব্যবহার করে পাকানো প্রায় আম এক হাজার মণ আম ও ৪০ মণ খেজুর ধ্বংস করেছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেই সঙ্গে এসব মজুদ ও বিক্রির দায়ে ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার যাত্রাবাড়ী ফলের আড়তের মোট ৯টি ফলের দোকানে অভিযান পরিচালনা করে সর্বমোট এক হাজার মণ রাসায়নিকযুক্ত অপরিপক্ক আম এবং মেয়াদোর্ত্তীর্ণ হওয়ায় প্রায় ৪০ মণ খেজুর জব্দ করা হয়। এরপর সেগুলো ফলের আড়তের সামনে পাকা রাস্তার উপর জন সম্মুখে বুলডোজার দ্বারা ধ্বংস করার নির্দেশ দেন র‍্যাব সদর দপ্তর এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সারওয়ার আলম।

সেই সাথে এসব মজুদ ও বিক্রির দায়ে ৯জন ব্যেবসায়ীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রদান করেন তিনি। সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, আশা বাণিজ্যালয়ের লুৎফর রহমান ও জাকির হোসেনকে এক বছর, মোস্তফা এন্টারপ্রাইজের মোস্তফা শেখকে ছয় মাস, সাতক্ষীরা বাণিজ্যালয়ের মো. ইয়াসিনকে ছয় মাস, এস আলম বাণিজ্যালয়ের মিঠুন সাহাকে দুই মাস, আতিউর ট্রেডার্সের রঞ্জিত রাজবংশীকে তিন মাস, বিসমিল্লাহ ট্রেডার্সের মো. শাহিদুল এবং নামহীন দুটি প্রতিষ্ঠানের মেহেদী হাসান ও রেজাউল নামে দুই জনকে ১৫ দিন।

অভিযানের ব্যাপারে মোঃ সারওয়ার আলম জানান, বিভিন্ন জেলা হতে অপরিপক্ক কাঁচা আম এনে মাত্রাতিরিক্ত ক্ষতিকারক ইথোফেন, কার্বাইড ও অন্যান্য রাসায়নিক ব্যবহার করে পাকিয়ে বাজারে বিক্রি করছিল এই চক্রটি। এসকল আম শিশু ও জন স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। অপরদিকে খাবারের অযোগ্য মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুরও জব্দ ও ধ্বংস করা হয়।

অভিযানকালে তার সাথে ছিলেন বিএসটিআই’র ফিল্ড অফিসার মোঃ সহিদুল ইসলাম, ফরহাদ হোসেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এর স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান প্রমুখ।