SOMOYERKONTHOSOR

বজ্রপাত থেকে বাঁচার ৯ উপায়

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:বায়ুমণ্ডলে বাতাসের তাপমাত্রা ভূ-ভাগের উপরিভাগের তুলনায় কম থাকে। এ অবস্থায় বেশ গরম আবহাওয়া দ্রুত উপরে উঠে গেলে আর্দ্র বায়ুর সংস্পর্শ পায়। তখন গরম আবহাওয়া দ্রুত ঠাণ্ডা হওয়ায় প্রক্রিয়ার মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি হয়ে বজ্রমেঘের সৃষ্টি হয়।

তখনই বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। সাধারণত মার্চ থেকে মে এবং অক্টোবর থেকে নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বজ্রঝড় হয়ে থাকে। এ ছাড়া কালবৈশাখে তো আকাশে বিদ্যুতের ঝলকানি হরহামেশাই দেখা যায়। এ সময় ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে কয়েক পশলা বৃষ্টি হয়।

এ সময় মাঝে মধ্যেই বাজ পড়ে নানা দুর্ঘটনার খবরও শোনা যায়। বাসা, অফিস এবং রাস্তাঘাটে যে কোনো স্থানেই আপনি বজ্রপাতের মধ্যে পড়তে পারেন। এ ক্ষেত্রে নিজেকে সুরক্ষিত রাখার কিছু উপায় জানিয়ে দিয়েছে বিশেষজ্ঞরা।

১. ঘন ঘন বজ্রপাত হতে থাকলে সবচেয়ে বেশি ভালো হয় যদি আপনি কোনো দালানের নিচে আশ্রয় নিতে পারেন। এ সময় কোনো অবস্থাতেই খোলা বা উঁচু জায়গায় থাকা যাবে না।

২. ফাঁকা জায়গায় যাত্রী ছাউনি,উঁচু গাছপালা, বিদ্যুতের খুঁটি ইত্যাদিতে বজ্রপাতের সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই বজ্রপাতের সময় এসব জিনিস থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

৩. বজ্রপাতের সময় বাড়িতে থাকলে জানালা থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

৪. বজ্রপাত ও ঝড়ের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ ইত্যাদি স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। এমনকি ল্যান্ড লাইন টেলিফোনও স্পর্শ করবেন না। বজ্রপাতের সময় এগুলোর সংস্পর্শ এসে অনেকে আহত হন।

৫. বজ্রপাতের সময় বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত সব যন্ত্রপাতি স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদি বন্ধ করা থাকলেও ধরবেন না। বজ্রপাতের আভাস পেলেই এগুলোর প্লাগ খুলে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করুন। অব্যবহৃত যন্ত্রপাতির প্লাগ আগেই খুলে রাখুন।

৬. বজ্রপাতের সময় রাস্তায় গাড়িতে থাকলে যত দ্রুত সম্ভব বাড়িতে ফেরার চেষ্টা করুন। যদি প্রচণ্ড বজ্রপাত ও বৃষ্টির সম্মুখীন হন তবে গাড়ি কোনো বারান্দা বা পাকা ছাউনির নিচে নিয়ে যান। এ সময় গাড়ির কাঁচে হাত দেওয়া বিপজ্জনক হতে পারে।

৭. বৃষ্টির সময় রাস্তায় জল জমাটা আশ্চর্য নয়। তবে বাজ পড়া অব্যাহত থাকলে সে সময় রাস্তায় বের না হওয়াই মঙ্গল। একে তো বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকে। উপরন্তু কাছাকাছি কোথাও বাজ পড়লে বিদ্যুত্‍স্পৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনাও থেকে যায়।

৮. বজ্রপাতের সময় চামড়ার ভেজা জুতা বা খালি পায়ে থাকা খুবই বিপজ্জনক। যদি একান্ত বেরোতেই হয় তাহলে পা ঢাকা জুতো পড়ে বের হোন। রবারের গাম্বুট এ ক্ষেত্রে সব থেকে ভালো কাজ করবে।

৯. বজ্রপাতের সময় রাস্তায় চলাচলের সময় আশেপাশে খেয়াল রাখুন। যে দিকে বাজ পড়ার প্রবণতা বেশি সে দিক বর্জন যাওয়া এড়িয়ে চলুন। কেউ আহত হলে তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন।