মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে বুধবার ভোর ৫টা: ৮ জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৯!

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা :: সারা দেশে চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে ৮ জেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এবার মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২ থেকে থেকে বুধবার ভোর ৫টা পর্যন্ত ৯ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

র‌্যাব ও পুলিশের দাবি- নিহতরা সবাই মাদককারবারির সঙ্গে জড়িত। কারও কারও বিরুদ্ধে থানায় মাদক আইনে মামলাও রয়েছে।

জানা গেছে, মাদকবিরোধী অভিযানকালে কুষ্টিয়ায় ২জন, কুমিল্লা, ফেনী, ঠাকুরগাঁও, রংপুর, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা ও জামালপুরে একজন করে নিহত হয়েছেন।

কুষ্টিয়া : আমাদের কুষ্টিয়ার সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট এস.এম.আবু ওবাইদা-আল-মাহাদীর পাঠানো খবরে জানা যায়, কুমারখালী ও ভেড়ামারায় পুলিশের সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই যুবক নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- ফটিক ওরফে গাফফার (৩৭) ও লিটন শেখ (৪০)। নিহত ফটিক ওরফে গাফফার উপজলার এলেঙ্গীপাড়া গ্রামের মৃত ওসমান গনির ছেলে ও লিটন শেখ উপজেলার নওদাপাড়া এলাকার মৃত গোলবার শেখের ছেলে।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১ টার দিকে কুমারখালী লাহিনীপাড়া এলাকায় বন্দুকযুদ্ধে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী ফটিক নিহত হন। এবং লিটন শেখ ভেড়ামারা উপজেলার হাওয়াখালী মাঠের মধ্যে ইটভাটার কাছে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

রংপুর : রংপুরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে শাহিন মিয়া (৩০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, নিহত শাহিন মিয়া তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। বুধবার ভোরে সদর উপজেলার উত্তম হাজিরহাট এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে এক বস্তা ফেনসিডিল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয় বলে জানান রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান সাইফ।

লালমনিরহাট: আমাদের লালমনিরহাট প্রতিনিধি মোঃ ইউনুস আলীর পাঠানো খবরে জানা যায়,  সদর থানা পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নুর আলম এশার (৪০) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। বুধবার রাত ৩টায় লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ধরলা সেতুর কাছে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত এশার আলী কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ি ও লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের দুই জেলার সীমান্তের এন্তাজ আলীর ছেলে। এশার  বিরুদ্ধে থানায় মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে।

গাইবান্ধা: আমাদের গাইবান্ধা প্রতিনিধি মোঃ ফরহাদ আকন্দ জানা, জেলার পলাশবাড়ী উপজেলায় র‍্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রাজু মিয়া নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। রাজু উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের রাইগ্রামের হিরোইন সম্রাট মৃত আব্দুল জোব্বারের ছেলে।

বুধবার (২৩ মে) ভোরে পলাশবাড়ী উপজেলার বিশ্রামগাছি গ্রামে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী অস্ত্র, গোলাবারুদ এবং বিপুল পরিমান গাঁজা উদ্ধার করেছে র‍্যাব। তার বিরুদ্ধে পলাশবাড়ী থানায় একাধিক মাদক ও অস্ত্র আইনে মামলা রয়েছে।

কুমিল্লা : কুমিল্লায় গ্রেফতারের পর ডিবি ও থানা পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইসহাক ওরফে ইছা নামে ১১ মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার দিকে জেলার আদর্শ সদর উপজেলার চাঁনপুর ব্রিজসংলগ্ন সামারচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ৪০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত ইসহাক একই উপজেলার গাজীপুর গ্রামের আবদুল জলিলের ছেলে।

ফেনী : সদরের দাউদপুল এলাকায় র‌্যাব ৭-এর সদস্যদের সঙ্গে ‘গোলাগুলিতে’ মো. ফারুক (৩৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাতে ফেনী সদরের দাউদপুল এলাকায় র‌্যাব ৭-এর সদস্যদের সঙ্গে ‘গোলাগুলিতে’ তার মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি প্রাইভেটকার, একটি ওয়ান শুটারগান, ৫ রাউন্ড গুলি ও পাঁচটি খালি খোসা এবং ২২ হাজার ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধে অনেকগুলো মামলা রয়েছে বলে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা মিমতানুর।

ঠাকুরগাঁও : আমাদের ঠাকুড়গাও প্রতিনিধি কামরুল হাসানের পাঠানো খবরে জানা যায়, বুধবার ভোর ৪টার দিকে সদর উপজেলার ভাতারমাড়ী ফার্ম এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আলতাফুর নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ জানান, আফতাবুল ইসলামকে তার বাড়ি থেকে ১০০ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর আফতাবুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তার সহযোগীদের ধরতে অভিযানে যায় পুলিশ। তাকে নিয়ে পীরগঞ্জের দিকে যাওয়ার সময় ভাতারমাড়ী ফার্ম সংলগ্ন বনবাড়ি এলাকায় গেলে একদল দুর্বৃত্ত পুলিশের ওপর গুলি চালায়। তারা আফতাবুলকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে আফতাবুল ঘটনাস্থলেই নিহত হন। তার বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় মোট ১৯টি মামলা আছে, যার মধ্যে ১২টিই মাদকবিরোধী আইনে দায়ের করা।

জামালপুর: জামালপুরে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ভোরে জামালপুর শহরতলীর ছনকান্দা মাদ্রাসা বালুঘাট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। নিহত মাদক ব্যবসায়ীর পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ।

জামালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম জানান, একদল মাদক ব্যবসায়ী মাদক কেনাবেচা করছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি ছোড়ে। পুলিশ পাল্টা গুলি ছুঁড়লে এক মাদক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়। এসময় অন্য মাদক ব্যবসায়ীরা ব্রহ্মপুত্র নদ পার হয়ে পালিয়ে যায়।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১ হাজার পিচ ইয়াবা, ১০০ গ্রাম হেরোইন, একটি পিস্তল ও ৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

প্রসঙ্গত, এর আগে সোমবার রাত ১২টা থেকে মঙ্গলবার ভোর ৫টা: ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৯ জেলায় ১১ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়। রোববার দিবাগত রাত থেকে সোমবার ভোর পর্যন্ত মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নয়জন নিহত হয়েছিল। তারাও মাদককারবারি বলে দাবি করেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।