SOMOYERKONTHOSOR

‘খুলনায় যা হয়েছে গাজীপুরে তা হবে না, কারণ গাজীপুর আর খুলনার মানুষ এক নয়’

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা :: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, সরকারের পতন হবে আমাদের আগামী আন্দোলনের প্রধান ইস্যু। আদালত দিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে না। মুক্তি হবে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে। সময়ই বলে দেবে কি ধরনের আন্দোলন হবে। সারাদেশে এখন একটি মাদক বিরোধী অভিযান চলছে। রিকশাওয়ালা থেকে শুরু করে সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষও জানে মাদকের মূল হোতা কারা? আন্তর্জাতিকভাবে কারা মাদক ব্যবসা করে। কোনো এমপি কোনো মন্ত্রী এই ব্যবসা করে এরা সব তারা জানে। প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকায় সরকার দলীয় এমপি ও নেতাকর্মীর ছত্রছায়া ছাড়া কোনো মানুষ মাদক ব্যবসা করতে পারে না। একই সঙ্গে প্রশাসনের সহযোগিতা ছাড়া কেউ মাদক ব্যবসা করতে পারে না। অথচ তাদেরকে গ্রেপ্তার করছে না। সাধারণ মাদক বহন করার লোকটিকে ধরে ধরে হত্যা করছে। তাদের জিজ্ঞাসা করলে নেতাদের নাম বলবে বলে হত্যা করা হচ্ছো।

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে শহীদ জিয়ার ৩৭ তম শাহাদত বার্ষিকী ও খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন। সমাবেশের আয়োজন করে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাব।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আগামী নির্বাচন নিয়ে এই সরকারের নীল নকশা খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মাধ্যমে আপনারা দেখেছেন। খুলনায় দলীয় ও প্রশাসনের মাধ্যমে ভোট ডাকাতি করেছে। এখন গাজীপুরেও একই নীল নকশা তারা করছে। তবে খুলনায় যা হয়েছে গাজীপুরে তা করতে পারবে না। কারণ গাজীপুর আর খুলনার মানুষ এক নয়। খুলনার অভিজ্ঞতা মূল্যায়ন করে সরকারের কুটকৌশল প্রতিহত করার জন্য আমরা আমাদের আমাদের কৌশল পরিবর্তন করে মাঠে থাকব। এমপি-মন্ত্রীদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ গ্রহণ করার সুযোগ দিয়ে আমাদের গাজীপুর নির্বাচন থেকে সরে আসার চক্রান্ত করা হচ্ছে। কিন্তু আমাদের সরানো যাবে না। শেষ সময় পর্যন্ত মাঠে থাকব।

তিনি বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী ভারতে গেছেন। বার বার যান। কয়েকবার ভিজিট করেছেন। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের মরা বাচার সমস্যা তিস্তার পানি আনতে পারেন না।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম বীর প্রতীক, বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শহিদুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন ড্যাব সভাপতি আজিজুল ইসলাম।