মাদকের সঙ্গে জড়িত কাউকে কোন ছাড় নয় : ওবায়দুল কাদের

মোঃ মনির মন্ডল, নিজস্ব প্রতিবেদক-সাভার: আওয়ামী লীগের কক্সবাজারের সংসদ সদস্য বদির বিরুদ্ধে যদি মাদকের প্রমাণ পাওয়া যায় বদির বেয়াই যেমন ছার পায়নি তেমনি আওয়ামী লীগ, বিএনপি যে দলেরই হোক কেউ রেহাই পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার দুপুরে তিনি আসন্ন রোজার ঈদকে সামনে রেখে আশুলিয়ার বাইপাইল এলাকায় বাইপাইল আব্দুল্লাহপুর ও নবীনগর চন্দ্রা মহাসড়কের সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শন করতে এসে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, সারাদেশে সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে তাই মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযান শুরু করেছে র‌্যাব এবং পুলিশ। এই অভিযানে রাজনৈতিক মতলবে একটি মহল খুশি না হতেও পারে কিন্তু দেশের মানুষ অনেক খুশি। কারণ এ দেশের তরুণ সমাজ মাদকের কারনে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আজকে মায়ানমার থেকে রোহিঙ্গা স্রোতের মত দেশে সুনামির মত মাদক ঢুকে পড়েছে পাড়া মহল্লায়।

এই অবস্থায় জনগণ এ রকম একটি অভিযান চেয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা করা হচ্ছে। তদন্ত করে র‌্যাব এবং পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে।

বন্দুকযুদ্ধে সম্পর্কে মন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে অস্ত্র থাকে তাই পুলিশ ও র‌্যাব যখন তাদেরকে নিয়ে মাদক উদ্ধারে যায় তখন মাদক ব্যবসায়ীরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে উদ্দেশ্যে করে গুলি করেন তখন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায় এটাই বন্দুকযুদ্ধ। মাদক ব্যবসায়ীরা কোটি কোটি টাকার ব্যবসা করে তাই তাদের কাছে অস্ত্র থাকে।

আগামী অক্টবর মাসে আব্দুল্লাহপুর থেকে আশুলিয়ার ডিইপিজেড পর্যন্ত সাড়ে আটশ কোটি টাকা ব্যায়ে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ শুরু হবে। এছাড়া বাইপাইল আব্দুল্লাহপুর মহাসড়কে অবৈধ ভাবে মাহিন্দ্র চলাচলে কেউ যদি চাঁদা তোলে তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঈদকে সামনে রেখে ঢাকা আরিচা মহাসড়ক সহ বিভিন্ন সড়কে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এদিকে মন্ত্রীর সামনে মহাসড়কে একটি ফিটনেস বিহীন গাড়ি পড়লে গাড়িটি ড্যাম্পিয়ে পাটিয়ে দেন।

মন্ত্রীর সাথে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন – বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন, সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও শেখ রাসেল হাসান, আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন খাঁন, সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক লুৎফর রহমান জয়সহ সড়ক ও জনপদ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।