নিউ ইয়র্কে এই প্রথম বাংলাদেশ নিয়ে কথা বললেন বিচারপতি সিনহা

প্রবাসের কথা ডেস্ক- হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান আইনি সমস্যাগুলো সমাধানে প্রয়াসী হলেও দুর্ভাগ্যজনকভাবে অসমাপ্ত কাজ রেখে তিনি দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছি বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের সুপ্রিমকোর্টের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা।

শনিবার নিউ ইয়র্কের কুইন্সে লোকনাথা সোসাইটি অব নিউ ইয়র্ক আয়োজিত পূজামণ্ডপ পরিদর্শনকালে তিনি ভক্তদের উদ্দেশে এ কথা বলেন। অসমাপ্ত কাজ শেষ করার জন্য কবে দেশে ফিরে যাচ্ছেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে যান সাবেক এই প্রধান বিচারপতি।

হিন্দু আইনের সংস্কার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সেই ব্রিটিশ আমল থেকে হিন্দু আইনে নানা জটিলতা রয়েছে। বিচারপতি হওয়ার সুবাদে হিন্দু আইনে সংস্কার আনার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু মুসলিম বিচারপতিদের অসহযোগিতায় সেটি করা সম্ভব হয়নি। কারণ মুসলিমপ্রধান দেশ তারা চায় না ধর্মীয় আইনে হাত দিতে। অবশেষে আমাকে আমার অসমাপ্ত কাজ রেখেই বিদায় নিতে বাধ্য হতে হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ায় হিন্দুদের দুরবস্থার কথা তুলে ধরতে গিয়ে সিনহা বলেন, নেপাল পৃথিবীতে একমাত্র হিন্দু দেশ। কিন্তু সেখানেও এখন ধর্মনিরপেক্ষ মতবাদ বিরাজ করছে। সেখানে মুসলমানরা প্রভাব বিস্তার করছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে শরিয়া ল চলছে। কমিউনিস্ট সরকার হোক কিংবা মমতার সরকার হোক সেখানে একজন হিন্দু মারা গেলে তাকে পোড়ানো যাচ্ছে না।

দেশ থেকে লন্ডন যাওয়ার এক মাসের মাথায় পদত্যাগ করলেও প্রকাশ্যে তেমন কোন কর্মসূচীতে আসেনি এই সাবেক প্রধান বিচারপতি। গত শনিবার হঠাৎই পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে আসেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন বিশিষ্ট লেখক ও মানবাধিকার কর্মী সিতাংশু গুহ ও কমিউনিটি নেতা নবেন্দু বাবু।

দেশ ছাড়ার পর এই প্রথম কোনো জনসমাগমে তাকে বক্তব্য রাখতে দেখা গেছে। গেল প্রায় ৬ মাসের অধিক সময় ধরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সিতে বসবাস করছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর প্রধান বিচারপতির পদে অধিষ্ঠিত ২১ জন বিচারকের মধ্যে সুরেন্দ্র কুমার সিনহাই প্রথম পদত্যাগ করেছেন। দেশের ৪৭ বছরের ইতিহাসে তিনিই ছিলেন প্রথম অমুসলিম প্রধান বিচারপতি।

২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারিতে দেশের ২১তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেছিলেন বিচারপতি সিনহা। এরপর বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনায় বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়ে আলোচনায় এসেছিলেন তিনি।

এরই মধ্যে নানা বিতর্কে জড়িয়ে গত বছরের ১৩ অক্টোবর এক মাসের ছুটি নিয়ে সুরেন্দ্র কুমার সিনহা অস্ট্রেলিয়া যান। সেখানে যাওয়ার আগে সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, আবার তিনি ফিরে আসবেন।

কিন্তু তখনই বিভিন্ন মহলে আলোচনা ছিল, তার আর ফেরার সম্ভাবনা নেই। শেষ পর্যন্ত তা-ই হয়েছে। একমাস পরেই রাষ্ট্রপতির উদ্দেশে পদত্যাগপত্র পাঠান এই বিচারপতি।