শিমুলিয়া ঘাটে দূর্ভোগ কমাতে নানা কর্মসূচী নিয়েছি : ডিআইজি মারুফ

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহ্মিদ, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি :: মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া ঘাট দক্ষিণ বঙ্গের ২১ জেলার প্রবেশদার। বুধবার থেকে যাত্রী পাড়াপাড় শুরু হয়েছে। তবে ঘাট এলাকায় তেমন চাপ এখনো পড়ে নাই।

বুধবার দুপুরে শিমুলিয়া ঘাট পরিদর্শনকালে নৌপুলিশের প্রধান ডিআইজি শেখ মো. মারুফ হাসান বলেন, যাত্রীদের পাড়াপাড়, নৌপথ নিরাপদ রাখতে আমরা নৌপুলিশ, জেলা পুলিশ, র‌্যাব, বিআইডব্লিউটিএ, বিআইডব্লিউটিসি, কোস্টগার্ড, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়, নৌযান শ্রমীক-মালিক আমরা সকলে সম্মলিত ভাবে কর্মসূচী নিয়েছি। প্রতিটি লঞ্চ ঘাটে বন্দরে ফেরি ঘাটে যেন যাত্রীদের দূর্ভোগ কম হয়।

তিনি আরো বলেন, আমরা টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে এই জনগণকে সেবা দেয়ার চেষ্টা করছি। এবার নৌপুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছি আমরা। ভীরের মধ্যে মাদক পাচার মাদক ব্যাবসা এগুলো ও করার চেষ্টা করে।

ঘাট এলাকা পরিদর্শন কালে তিনি স্পীডবোট কাউন্টার টিকিট চেক করেন। কাউনটারের ভীতরে অন্ধকার থাকায় জানালার কাঠ খূলেদেন। ল ঘাট যাত্রী ছাউনি ও লে হকারদের উচ্ছেদ করেন। তিনি জানান ভাড়া বেশি নেওয়ার অভিযোগ তিনি পেয়েছেন। তাই তিনি নৌপুলিশকে কঠোর ভাবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন।

এসময় সাথে ছিলেন নৌপুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি উত্তর বিভাগ মো. মাহবুবুর রহমান, মুন্সীগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান, লৌহজং থানা ওসি মোহাম্মদ লিয়াকত আলী, শিমুলিয়া নৌফারির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. আরমান প্রমুখ।