স্টেশনে বিলম্বে আসছে ট্রেন: ‘হুমড়ি খেয়ে উঠছে যাত্রীরা’

সময়ের কণ্ঠস্বর: কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে প্রায় প্রতিটি ট্রেনের ছাদেই বিপুল যাত্রী উঠছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন নিরুপায়। তাদের সামনেই দরজা-জানালা দিয়ে ছাদে উঠছে লোকজন। কেউ কেউ আবার মই দিয়ে ছাদে উঠছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রেলওয়ে পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তাদের কিছুই করার নেই। কিছু করতে গেলেই যাত্রীরা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। আমরা শুধু অনুরোধ করছি, ছাদে না ওঠার জন্য।

বুধবার সকাল থেকেই কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে। মূলত এক একটি ট্রেন যখন বিলম্বে চলাচল করে তখনই স্টেশনে যাত্রীদের জটলা লেগে যায়। বুধবার থেকে ৯টি ঈদ স্পেশাল ট্রেন বিভিন্ন রুটে চলাচল শুরু করে। স্পেশাল ট্রেনগুলো তিন গুণ যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে। ফলে ট্রেনের চালক কিংবা গার্ড ট্রেন চালাতেই হিমশিম খাচ্ছে। এমন অবস্থায় যাত্রীরা বিভিন্ন ধরনের মতামত প্রকাশ করছেন, কেউ বলছেন ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় মেনে নেয়া যায় না, কেউ বলছেন শিডিউল বিপর্যয় হলেও নিরাপদে যাত্রীরা স্ব-স্ব স্থানে পৌঁছতে পারলেই খুশি।

কমলাপুর রেলওয়ে ম্যানেজার সীতাংশ চক্রবর্তী জানান, তৃতীয় দিন যাত্রায় বেশ কয়েকটি ট্রেন বিলম্বে চলাচল করছে। মূলত এসব ট্রেন বিলম্বেই কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে আসছে। তাছাড়া স্টেশনে ট্রেনটি পৌঁছামাত্রই হুমড়ি খেয়ে যাত্রীরা ট্রেনে উঠছে। এক একটি ট্রেনে নির্ধারিত যাত্রীদের চেয়ে অনেক বেশি যাত্রী উঠছে। দীর্ঘ সময় ধরে যাত্রীরা ট্রেনে উঠছে। তাছাড়া যেসব ট্রেনগুলো অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে কমলাপুর থেকে ছেড়ে যাচ্ছে, সেই ট্রেনগুলো বিলম্বে কমলাপুর স্টেশনে আসছে। কারণ, অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে ট্রেনের চালক নির্ধারিত গতিতে চালাতে পারছে না। ফলে শিডিউল বিপর্যয় হচ্ছে। যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে গতি কমিয়ে, বিরতির সময় বাড়িয়ে ট্রেন চালাতে হচ্ছে।

রেলপথমন্ত্রীর স্টেশন পরিদর্শন ট্রেনে করে ঘরমুখো যাত্রীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। সূবর্ণ এক্সপ্রেসসহ বেশ কয়েকটি ট্রেনে থাকা যাত্রীদের সঙ্গে তিনি কথা বলেন এবং ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।