দিনাজপুরে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু, প্রতিবাদে ক্লিনিক ভাংচুর

শাহ্ আলম শাহী,স্টাফ রিপোর্টার,দিনাজপুর:দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ী জোড়া ব্রীজ সংলগ্ন আল-মদীনা ক্লিনিকে সিজার করতে গিয়ে ভুল চিকিৎসায় এক প্রসুতি মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় রোগির আত্মীয়-স্বজন ও উত্তেজিত জনতা ক্লিনিকে হামলা চালিয়েছে। পরে স্থানীয় প্রশাসন পুলিশ মোতায়েনের মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনলেও ক্লিনিকের ডাক্তার ও কর্মচারীরা ক্লিনিকে ছেড়ে পালিয়েছে।

এ দিকে এ ঘটনা যাতে মিডিয়ায় প্রকাশ না পায় এজন্য কথিত কিছু সাংবাদিক ও ক্যামরাম্যারকে মোটা অংক নাজরানা দিয়েছে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ। প্রসূতির মৃত্যুর জন্য রোগির লোকজন সিজারিয়ার ডাঃ খাদিজা নাহিদ ইভাকে দায়ী করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, বুধবার সকালে দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ী জোড়া ব্রীজ সংলগ্ন আল-মদীনা ক্লিনিকে।

রোগীর ভাগিনা মোঃ মামুন সাংবাদিকদের জানায়,দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ৮নং সাইতাঁড়া ইউনিয়নের মোঃ ইয়াকুব আলীর স্ত্রী ৩ মেয়ে সন্তানের জননী মোছাঃ হোসনে আরাকে শহরের বালুবাড়ী জোড়াব্রীজ সংলগ্ন আল-মদিনা ক্লিনিকে গত ১২ জুন মঙ্গলবার ভর্তি করা হয়।

মাতৃ সদনের গাইনী বিভাগের প্রধান ডাঃ খাদিজা নাহিদ ইভা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে এবং বিকাল ৪ টায় সিজার করতে বলে। রোগীর লোকজনের মতামতের ভিত্তিতে বিকাল ৪টায় সিজার করেন ডাঃ ইভা। ভুল চিকিৎসায় প্রচুর রক্তক্ষরণ হলেও সিজার করার মাধ্যমে হোসনে আরা একটি পুত্র সন্তান জন্ম দেয়। কিন্তু কোন ভাবেই তার রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়াতে সকালে মোছাঃ হোসনে আরা মারা যায়।

অবস্থা বেগতিক দেখে রোগীর লোকজনকে না জানিয়ে তড়িঘড়ি করে এ্যাম্বুলেন্স ডেকে উন্নত চিকিৎসার অজুহাতে মৃত রোগী হোসনে আরা কে মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়। সেখানে কর্মরত চিকিৎসকরা লোকদেখানোর চিকিৎসার অভিনয় করে শেষ পর্যন্ত তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে এবং ডেট সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

এদিকে রোগীর লোকজন সংবাদ পেয়ে গতকাল ১৩ জুন বুধবার সকাল থেকে রোগীর লোকজন স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে আল-মদিনা ক্লিনিকে হামলা চালায় এবং ঢিল পাটকেল নিক্ষেপ, চিল্লাচিল্লি শুরু করলে ক্লিনিকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পালিয়ে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

রোগীর ভাগিনা মোঃ মামুন আরও বলেন এই ক্লিনিকে ইতিপূর্বে ভুল চিকিৎসায় কয়েকজন রোগী মারা গেছে এদের বিচার হওয়া প্রয়োজন। আমরা মামলার মাধ্যমে ডাঃ খাদিজা নাহিদ ইভা’র দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবী করছি।