ভিজিএফ’র চাল নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের কান্ড!

সিরাজুল ইসলাম শিশির, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :: যদিও সরকার থেকে হুশিয়ারী আছে ভিজিএফ চাল ক্রয় এবং বিক্রয় দুটোই সমান অপরাধ। সেখানে সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়ন পরিষদে ঘটেছে এক ব্যতিক্রম ঘটনা। ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান বুলবুল এর যোগসাজশে ২০০ মন চাউল কিনলো তার পরিচিত এক চাউল ব্যাপারী আব্দুল হান্নান। বৃ

হস্পতিবার (১৪ জুন) সকাল থেকে দুপুর প্রর্যন্ত চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে চাউল বিতারনের সময় এই চাউল ক্রয় করেন তিনি এবং সন্ধ্যে দিকে এই চাউলগুলো ট্রাক ভর্তি করে নিয়ে যায় তার গোডাউনে।

যদিও বলা আছে যে কোনো ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতাসহ যদি কেউ ভিজিএফ চাল বিক্রি বা ক্রয়ের সঙ্গে জড়িত থাকে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, কিন্তু মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়ন পরিষদে ঘটেছে এর ব্যতিক্রম ঘটনা।

নাম না বলা শর্তে কিছু এলাকাবাসী জানান, চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের চোখের সামনে এই চাউল ক্রয় বিক্রয় হয়, কেউ কিছু বলে না। তাছাড়া তারা আরও জানান, খোলা বাজারে এই চাউল বিক্রি করলে যে টাকা পেত, তার চেয়ে এখানে তাদের অর্ধেক দাম দেয়া হচ্ছে। সেখানে লাভবান হচ্ছে ব্যাপারীরা, এটা সর্ম্পন্ন একটা সিন্ডিকেট, দেখার কেউ নেই।

চাউল ব্যাপারী আব্দুল হান্নান বলেন, আমি ইউনিয়ন পরিষদের সবার সম্মতিতে এই চাউলগুলো কিনেছি আমাকে কেউ বাধা দেয়নি। আমি আজ প্রায় এক ট্রাক (২০০ মন) ভিজিএফ চাউল কিনেছি। এগুলো বাইরে নিয়ে বিক্রয় করব।

এই ব্যাপারে ৪ নং মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আতিকুর রহমান বুলবুল সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান, আমি আজ প্রায় ২০০০ জন গরীব অসহায় মানুয়ের মধ্যে ১০ কেজি করে ভিজিএফ চাউল বিতারণ করেছি। পরিষদের বাইরে যদি তারা চাউল বিক্রয় করে এতে আমার কিছু করার নেই।