দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে কলেজ ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ

সময়ের কণ্ঠস্বর: গাজীপুরের শ্রীপুরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে মেহেদী হাসান রাব্বি (২০) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

১০ আগস্ট শুক্রবার রাতে তাকে আটক করা হয়। পরে এ বিষয়ে নির্যাতিত ছাত্রীর বাবার করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করে আটককৃত মেহেদী হাসানকে ১১ আগস্ট শনিবার দুপুরে জেলহাজতে প্রেরণ করে শ্রীপুর থানা পুলিশ।

মেহেদী হাসান রাব্বি শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের চকপাড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

ওই কলেজ ছাত্রী তরুণীর স্বজনদের বরাত দিয়ে শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খাইরুল ইসলাম জানান, আটককৃত যুবক ও যৌন হয়রানির শিকার ছাত্রীর বাড়ি একই গ্রামে। ওই ছাত্রী গাজীপুরের একটি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। উভয়ের বাড়ি একই গ্রামে হওয়ায় তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে অভিযুক্ত যুবক আরও দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে বিয়ের প্রলোভনে একাধিকবার ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে।

একপর্যায়ে ছাত্রীটি গর্ভধারণ করলে অভিযুক্ত যুবক তার বন্ধুদের সহায়তায় ওই ছাত্রীর গর্ভপাত ঘটায়।

এদিকে, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় উভয়েই মাওনা চৌরাস্তার উড়াল সেতুর উপর কথাকাটাকাটি করে। কিন্তু যুবক বিয়ের ব্যাপারে অস্বীকৃতি জানালে তরুণী একটি গাড়ির নিচে ঝাঁপ দেয়। তবে, গাড়িচালকের দক্ষতায় সে প্রাণে বেঁচে যায়। এ ঘটনা স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, মেয়ের বাবার অভিযোগ শনিবার মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়, পরে আটককৃত যুবককে শনিবার দুপুরের দিকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।