আহা….!

অবাক পৃথিবী ডেস্ক :: আশ্চর্যই বটে। নিজের মালিকের জীবন বাঁচাতে কুকুর নিজে নিয়ে গেল হাসপাতালে। ওই মহিলার পরিবারে একমাত্র সদস্য এই কুকুরটিই। চিনের ছোট্ট এক শহর ডেকিং৷ ওই শহরের বাসিন্দা মহিলার পরিবারের সদস্য বলতে একটি সারমেয় নামের কুকুরটি৷

কয়েকদিন ধরে অসুস্থ তিনি৷ শারীরিক অসুস্থতা নিয়েই নিজের পোষা কুকুর সারমেয়কে নিয়ে বেরিয়েছিলেন ওই মহিলা৷ তাতেই ঘটল বিপত্তি৷ মাথা ঘুরে রাস্তায় পড়ে যান তিনি। অচেতন হয়ে পড়েন। চোখের সামনে নিজের কাছের মানুষকে অসুস্থ হয়ে পড়ে যেতে দেখে দৌড়ঝাপ শুরু করে দেয় কুকুরটি। চিৎকার করে লোকজন জড়ো করে। আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই মহিলাকে মাটি থেকে তোলার চেষ্টা করেন৷ ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌঁছায় মেডিক্যাল টিম৷

অসুস্থ মহিলাকে অ্যাম্বুল্যান্সে তোলার তোড়জোড় শুরু হয়। নিজের মনিবকে অ্যাম্বুল্যান্সে তুলতে দেখে আরও উদগ্রীব হয়ে পড়ে কুকুর সারমেয়। নিয়ম অনুযায়ী অ্যাম্বুল্যান্সে কোন প্রাণীকে উঠতে দেয়া হয়না। কিন্তু চিকিৎসক জানান, কুকুরটি কিছুতেই তার মালিককে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় অ্যাম্বুল্যান্সে তুলতে দিচ্ছিল না৷ এছাড়া মনিবকে সুস্থ করার জন্য কুকুর সারমেয়ের চেষ্টা দেখেও অবাক হয়ে যান মেডিক্যাল টিমে থাকা প্রত্যেকেই৷ তাই এক প্রকার বাধ্য হয়ে অ্যাম্বুল্যান্সে কুকুরটিকে তোলার সিদ্ধান্ত নেন তারা৷

মহিলার জ্ঞান ফেরাতে কুকুরের এই কীর্তিই এখন নেট দুনিয়ায় ভাইরাল৷ প্রাথমিক চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে যান ওই মহিলা৷ জ্ঞান ফেরার পরই নিজের পোষ্যকে জড়িয়ে ধরেন তিনি৷ চোখের জলও আর ধরে রাখতে পারেননি৷ সবাইকে তখন একটি শব্দই বলতে শোনা যায়, আহা! কি মায়া!