নীলফামারীর উন্মাতাল ফুটবল সমর্থকদের জয় উপহার দিতে পারলেন না মামুনুলরা

স্পোর্টস্ আপডেট ডেস্ক :: নীলফামারীর শেখ কামাল স্টেডিয়ামে বিকেলে অনুষ্ঠিত প্রীতি ম্যাচটি দেখতে গ্যালারিতে ছিল উপচে পড়া ভীড়। কিন্তু সমর্থকদের মুখে হাসি ফোটাতে পারেননি মামুনুল-সোহেলরা। শ্রীলঙ্কার কাছে হেরেছে ১-০ গোলে। শেষ চার ম্যাচের মধ্যে এই প্রথম বাংলাদেশকে হারাল শ্রীলঙ্কা। ২০১৪ ও ২০১৬ সাল মিলিয়ে খেলা তিন ম্যাচের দুটিতে জিতেছিল বাংলাদেশ। অন্য ম্যাচটি ড্র হয়েছিল।

২০০৩ সালে প্রথমবার সাফ ফুটবলের শিরোপা জিতেছিলো বাংলাদেশ। ২০০৯ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সর্বশেষ আসওে সেমিফাইনাল খেলে লাল সবুজের প্রতিনধিরা। এর পরের তিন আসরে গ্রুপ পর্ব পর্বেও বাধা পেরুতে পারেনি মামুনুলরা। এবার ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিতব্য সাফ শিরোপা পুনরুদ্ধার করতে গেল কয়েক মাস ধরেই প্রস্তুতি নিয়েছে লাল সবুজের দল। থাইল্যান্ড, কাতার, দক্ষিণ কোরিয়ার কন্ডিশনিং ক্যাম্প শেষে এশিয়াডে দুর্দান্ত পারফরমেন্স। কিন্তু শেষটা ভাল হলো না। শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে সাফের প্রস্তুতি শেষ করল স্বাগতিকরা। বিকেল নীলফামারীর শেখ কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে বাংলাদেশকে ১-০ গোলে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা। এদিন শুরুতেই পিছিয়ে পড়ে স্বাগতিক দল।

ম্যাচের ১৫তম মিনিটে দূরপাল্লার আচমকা শটে গোল হজম করে বাংলাদেশ দল। নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে বাংলাদেশ তাঁদের পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনে। বাংলাদেশ তুলনামূলকভাবে আক্রমণের ধার বৃদ্ধি করে। আক্রমণ বৃদ্ধি করে বাংলাদেশ বেশ কয়েকবার গোলের সুযোগ পেয়েও যায়। কিন্তু শ্রীলঙ্কা দলের গোলপোস্টের প্রহরী সুজন পেরারা দুর্দান্তভাবে নিজেদের গোলপোস্ট রক্ষা করতে থাকে। দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের গতি বাড়িয়েও গোল শেঅধ করতে পারেনি মামুনুল-জাফর ইকবালরা। ৪৯ মিনিটের মাথায় বাংলাদেশের সুযোগ এসেছিল খেলায় সমতায় ফেরার। খেলার ৪৯ মিনিটের সময় বাংলাদেশ কর্নারের দেখা পায়। কর্নার থেকে বল মাথায় লাগানোর আগেই শ্রীলঙ্কার গোলকিপার ঝাঁপিয়ে পরে বলটি ধরে ফেলেন।

খেলার ৭২ মিনিটের সময় বাংলাদেশ আবার সুযোগ পেয়েছিল সমতায় ফেরার। কিন্তু এবারো বাংলাদেশকে হতাশায় ভোগায় শ্রীলঙ্কার গোলরক্ষক। ফলে যা হবার তাই হয়েছে। শ্রীলঙ্কার কাছে ১-০ গোলে হেরে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের প্রস্তুতি শেষ করল বাংলাদেশ দল।