সংবাদ শিরোনাম
হামলার জন্য ইশরাককেই দায়ী করলেন তাপস | বগুড়ায় স্কুল মাঠে পশুহাট শিক্ষার পরিবেশ ব্যাহত | ঘুষের চুক্তি অনুযায়ী টাকা না দেয়ায় প্রতিবাদকারীই চার্জসীটভুক্ত আসামী ! | সংঘর্ষের পর ইশরাকের বাসায় ব্রিটিশ হাইকমিশনার | ৩২৯ টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপন প্রকল্প একনেক অনুমোদন পাওয়ায় সিরাজগঞ্জে আনন্দর‌্যালী | শুল্কায়ন ব্যবস্থাপনাকে আরও সহজতর করতে হবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী | পাওনা টাকা চাওয়ায় বাউফলে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম | বাবা আতিকের জন্য ভোট চাইলেন বুশরা | তাহিরপুরে উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় ইউএনওর | সীমান্তে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি হলে আইনি পদক্ষেপ: সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী |
  • আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

লামায় ২৬ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের প্রকাশ্যে চাঁদা আদায়, সেনাবাহিনীর সাথে গোলাগুলি

৮:২১ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৮ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

এস.কে খগেশপ্রতি চন্দ্র খোকন, লামাঃ লামা উপজেলার লামা সদর ইউনিয়নের মেরাখোলা ও ছোটবমু এলাকায় প্রায় ২৬ জনের সশস্ত্র একটি পাহাড়ি সন্ত্রাসী গ্রুপ দিনে দুপুরে হামলা চালিয়ে ১৩ টি দোকানের মালিক থেকে চাঁদা আদায়সহ মালামাল লুট ও স্থানীয় একজনকে মারধর করার ঘটনা ঘটেছে।

৪ সেপ্টেম্বর রোজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে দুপুর ১২টা  সময়ে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন, লামা সদর ইউনিয়নের ছোট বমু, পোয়াং পাড়া ও মেরাখোলা এলাকার আক্রান্ত প্রত্যক্ষদর্শী মানুষরা।

অস্ত্রধারী সন্ত্রসীরা  চাঁদা আদায় ও হামলা শেষে ফিরে যাওয়ার সময় ইউনিয়নের নকশা ঝিরি নামক স্থানে সেনাবাহিনীর সাথে পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের  গুলি বিনিময় হয়েছে বলে লামা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন এ ততথ্য নিশ্চিত করেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, খবর পেয়ে সেনাবাহিনী, পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, সকাল ১০ টায় সশস্ত্র পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা ছোট বমুর শুক্কুর পাড়া ও পোয়াং পাড়ায় হামলা চালিয়ে ৯টি দোকান থেকে তিন হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করা হয়েছে। এর পর সন্ত্রাসী গ্রুপটি মেরাখোলা বাজার এসে হামলা চালায়। সেখানে মিলন পাল নামক এক ব্যাক্তির চাঁদার পরিমান কম হওয়ায় তাকে মারধর করে  এবং তিন ব্যক্তি থেকে এক লাখ ৭০ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করেন। এ ছাড়া মোঃ কুয়েশ নামের এক দোকানদার থেকে দোকানের মালামাল লুটকরে নিয়ে যায়।

এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে লামা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন বলেন, দিনে দুপুরে সন্ত্রাসীদের হামলার বিষয়টি দুঃখজনক। চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছে লামা সদর ইউনিয়নের লোকজন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ অপ্পেলা রাজু নাহার বলেন, এলাকায় সন্ত্রাসীদের উপস্থিতির খবর পেয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশ ঘটনাস্থল হলে সন্ত্রসীরা পালিয়ে যায়। সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Loading...