সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর তীর সংরক্ষন বাঁধের ৪শ মিটারসহ ১৫টি ঘরবাড়ি নদী গর্ভে

৩:১৪ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৮ দেশের খবর, রাজশাহী, সমস্যা ও সমাধান

সিরাজুল ইসলাম শিশির, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে যমুনা নদীর তীর সংরক্ষন বাঁধে ৪শ মিটারসহ ১৫টি ঘরবাড়ি বিলীন নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে বাঁধ ভাঙ্গা আতংক বিরাজ করছে। ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয়রা বাড়ি ঘর ভেঙ্গে অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছেন।

শুক্রবার ভোর রাতে থেকে দুপুর পর্যন্ত চৌহালীতে যমুনা নদীর তীর সংরক্ষন বাঁধে ৪শ মিটারসহ ১৫টি ঘরবাড়ি বিলীন নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙ্গন ঠেকাতে বালির বস্তা নিক্ষেপ করছেন বলে চৌহালী উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার আনিসুর রহমান জানিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড ও টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা যায়, যমুনা নদীর ভাঙ্গনের হাত থেকে চৌহালী উপজেলা সদর ও টাঙ্গাইলের সিমান্তবর্তী এলাকা রক্ষায় ৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মান কাজ শুরু করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। ২০১৭ সালে বাঁধের নির্মান কাজ শেষ হয়। এতে রক্ষা পায় নদীর পুর্ব পাড়ের টাঙ্গাইল সদর উপজেলার সরাতৈল থেকে দক্ষিনে নাগরপুর উপজেলার পুকুরিয়া, শাহজানীর খগেনের ঘাট, সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার ঘোরজানের চেকির মোড়, আজিমুদ্দি মোড়, খাসকাউলিয়া, জোতপাড়া গ্রাম গুলো।

শুক্রবার ভোর রাতে যমুনার প্রবল স্্েরাতে বাঁধের পশ্চিম জোতপাড়া অংশে ভাঙ্গন দেখা দেয়। যা শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ৪শ মিটার নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। বাঁধের সাথে সাথে ১৫টি ঘরবাড়িও মুহুর্তের মধ্যে নদীতে বিলীন হয়ে যায়। কোন রকমে তীরে উঠে জীবন রক্ষা করে অন্তত ৫০ জন মানুষ।

টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান জানান, বিষয়টি জানার পর বাঁধ রক্ষায় বালির বস্তা ফেলার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।