এমপি হলে যেসব সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায়!

জানা-অজানা: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য সারা দেশে ৩ হাজার ৫৬ জন মনোনয় পত্র দাখিল করেছেন। নির্বাচনে আগে হাজার-হাজার ব্যক্তি প্রার্থী হবার আগ্রহ প্রকাশ করলেও শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন না পাওয়ায় তারা প্রার্থী হননি। এত সংখ্যাক প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিলেও শেষ পর্যন্ত প্রার্থী হতে পারবেন মাত্র ৩০০ জন। তাহলে এমপি হবার কেনো এত ইচ্ছা?

সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে একজন এমপি নানা রকম সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। একজন সংসদ সদস্য যেসব সুবিধা পান তা হচ্ছে :

১. সংসদ সদস্যদের মাসিক বেতন ৫৫,০০০ টাকা

২. নির্বাচনী এলাকার ভাতা প্রতিমাসে ১২,৫০০ টাকা

৩. সম্মানী ভাতা প্রতিমাসে ৫,০০০ টাকা

৪. শুল্কমুক্তভাবে গাড়ি আমদানির সুবিধা

৫. মাসিক পরিবহন ভাতা ৭০,০০০ টাকা

৬. নির্বাচনী এলাকায় অফিস খরচের জন্য প্রতিমাসে ১৫,০০০ টাকা

৭. প্রতিমাসে লন্ড্রি ভাতা ১,৫০০ টাকা

৮. মাসিক ক্রোকারিজ, টয়লেট্রিজ কেনার জন্য ভাতা ৬,০০০ টাকা

৯. দেশের অভ্যন্তরে বার্ষিক ভ্রমণ খরচ ১২০,০০০ টাকা

১০. স্বেচ্ছাধীন তহবিল বার্ষিক পাঁচ লাখ টাকা

১১. বাসায় টেলিফোন ভাতা বাবদ প্রতিমাসে ৭,৮০০ টাকা

১২. সংসদ সদস্যদের জন্য সংসদ ভবন এলাকায় এমপি হোস্টেল আছে।

এছাড়া ২০১৫ -২০১৯ সাল পর্যন্ত একজন সংসদ সদস্য প্রতিবছর চার কোটি টাকা করে থোক বরাদ্দ পাচ্ছেন। দাপ্তরিকভাবে এসব সুবিধা পেলেও এর বাইরে নানা সুবিধা রয়েছে সংসদ সদস্যদের জন্য। এর মধ্যে বিভিন্ন সময় নানা প্রকল্পে প্লট-ফ্ল্যাট বরাদ্দের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার অন্যতম। নির্বাচিত ব্যক্তি হিসেবে একজন সংসদ সদস্য তার এলাকায় সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ব্যক্তি হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হন।