আখের রসের পুষ্টিগুন ও নানা উপকারীতা

লাইফস্টাইল ডেস্ক: আখ বা ইক্ষুর খোসা ছাড়ানো একটু কষ্টকর বলে অনেকেই আখের রসটাই পান করতে অভ্যস্ত। যদিও পথে ঘাটে বিক্রিত আখের রসের চাইতে আখ খোসা ছাড়িয়ে খাওয়াই ভালো, তারপরও কেউ কষ্ট করতে চান না। আখের রস খারাপ মাত্রার কোলেস্টেরল কমায়, ইহা শরীরকে পরিষ্কার করে, উন্নত করে মেটাবলিজম এবং জীবাণুমুক্ত করতে সাহায্য করে।

চলুন তা হলে জেনে নেওয়া যাক  আখের রসের পুষ্টিগুন ও নানা উপকারীতা সম্পর্কে –

হজম ক্ষমতা বাড়ায়

অতিরিক্ত গরমের কারণে গরমকালে হজম ক্ষমতা বিগড়ে যেতে শুরু করে। সেই সঙ্গে সঙ্গী হয় গ্যাস আর অম্বল। আখের রসে উপস্থিত পটাশিয়ান হজম ক্ষমতার উন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। সেই কারণেই তো গরম কালে পেটকে ঠান্ডা রাখতে আখের রস খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা।

ক্লান্তি দূর করে

অতিরিক্ত ঘামের কারণে ক্লান্তি বোধ বেড়ে যাওয়াটা গরম কালে খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। এ ক্ষেত্রেও এক গ্লাস আখের রস আপনাকে সাহায্য করতে পারে। আসলে ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে খনিজ বেরিয়ে যাওয়ার কারণেই ক্লান্ত লাগে। আর যেমনটা আপনাদের সকলেরই জানা যে খনিজের ঘাটতি মেটাতে আখের রস দারুন ভাবে কাজে আসে। শুধু তাই নয়, পেশির শক্তি বাড়ানোর পাশপাশি এনার্জি বাড়াতেও এই পানীয়টি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়।

ত্বকের স্বাস্থ্য ভাল করে

গরম কালে নানা কারণে বেশ কিছু ত্বকের রোগ খুব বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে স্কিনও খুব শুষ্ক হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে আখের রস দরুন কাজে আসতে পারে। আসলে এতে উপস্থিত আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিড ত্বকের ঔজ্জ্বলতা বৃদ্ধির পাশপাশি একাধিক ত্বকের রোগের প্রকোপ কমাতে দারুন কাজে আসে।

শরীরে পানির মাত্রা স্বাভাবিক রাখে

অতিরিক্ত ঘামের কারণে শরীরে পানির ঘটতি দেখা দেওয়াটা একেবারেই স্বাভাবিক ঘটনা। তাতে কোনও সমস্যা নেই। তবে বেশিক্ষণ যদি এমন ঘটতি থাকে, তাহলে ডিহাইড্রেশনে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। এক্ষেত্রে আখের রস দারুন ভাবে কাজে আসে। আসলে শরীরে পানির মাত্রা ঠিক রেখে নানা ধরনের রোগকে দূরে রাখতে এই পানীয়টি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

লিভারের কর্মক্ষমতা বাড়ায়

শরীর থেকে তখনই ক্ষতিকর সব টক্সিন বেরিয়ে যেতে পারে, যখন লিভার চাঙ্গা থাকে। আর এই কাজে দারুনভাবে সাহায্য করে আখের রস। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে লিভারকে সুস্থ রাখতে আকের রসের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। তাই তো এই গরম কালে লিভার ফাংশন ঠিক রাখতে প্রতিদিন এক গ্লাস করে আখের রস খাওয়া জরুলি।

ইলেকট্রোলাইটসের মাত্রা স্বাভাবিক রাখে

আখের রয়ে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রণ এবং মেঙ্গানিজ। এই খনিজগুলি শরীরে ইলেকট্রোলাইটসের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।

সংক্রমণ কমায়

গরম কালে এবার থেকে আর সংক্রমণের ভয় থাকবে না, যদি সপ্তাহে তিনবার এক গ্লাস করে আখের রস খাওয়া যায় তো। কারণ যেমনটা আগেও বলেছি, এই পানীয়তে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রপাটিজ যা সংক্রমণের প্রকোপ কমাতে দারুন কাজে দেয়।

ইউরিনারি ট্রাক্ট ইনফেকশন রোধ করে

ডিহাইড্রেশনের কারণে গরম কালে ইউরিনারি ট্রাক্ট ইনফেকশনে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বহু গুণে বৃদ্ধি পায়। তাই তো এই সময় সুযোগ পেলেই আখের রস খাওয়া উচিত। কারণ অ্যালকালাইন প্রকৃতির এই পানীয়টি একদিকে যেমন এমন ধরনের সংক্রমমের প্রকোপ কমায়, তেমনি শরীরে জলের মাত্রা ঠিক রেখে এই ধরনের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমায়।

নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ ও দাঁতের ক্ষয় প্রতিরোধ করে

নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ পুষ্টির ঘাটতির কারণেও হতে পারে যা আখের রস পান করার মাধ্যমে পূরণ করা যায়। যদি আপনার দাঁত ক্ষয়ের পাশাপাশি নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের সমস্যাও থাকে তাহলে আখের রস পান করাই হচ্ছে সবচেয়ে ভালো ঘরোয়া প্রতিকার। আখের রসে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের মত খনিজ উপাদান থাকে যা দাঁতের এনামেল গঠনে সাহায্য করে।

sharing-is-caring!
Share on facebook
Share with others
Share on google
Share On Google+
Share on twitter
Share On Twitter
You May Also Like:
  • Recent Updates
  • Top Views News