বাড়ির মালিকের স্ত্রীর রমরমা মধুচক্র, তিন দেহপসারিণীসহ স্কুলের প্রধান শিক্ষক গ্রেপ্তার!

সময়ের কণ্ঠস্বর, নীলফামারী :: নীলফামারীর ডোমারে বাড়ীতে অবৈধ দেহ ব্যবসা করার অভিযোগে স্কুল শিক্ষক খদ্দেরসহ ৪ নারীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে ধৃতদের জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়।

জানা গেছে, ডোমার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কলেজপাড়া গ্রামের এলজিইডি নর্দান বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ডেপলভমেন্ট প্রোগ্রামে কর্মরত মৃত গিরিশ চন্দ্র সেনের ছেলে সুশিল কুমার রায়ের বাড়ীতে দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন এলাকা থেকে নারী এনে দেহ ব্যবসা চালিয়ে আসছিল।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সন্ধায় পুলিশ ওই বাড়ীতে হানা দিয়ে বাড়ীর মালিক সুশিল কুমার রায়ের স্ত্রী পুস্প রানী সেন (৩৬), খদ্দের মৌজা পাঙ্গা পন্ডিতপাড়া শান্তি নিকেতন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতোয়ার রহমান, পার্বতীপুর চৌমুহনী ভুজারীপাড়া গ্রামের ছমির উদ্দিনের স্ত্রী সুমি বেগম (২৬), সৈয়দপুর নিমবাগান এলাকার সোহাগের স্ত্রী তৃপ্তি বেগম (২৫) ও দিনাজপুর পুলহাট মিস্ত্রিপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের স্ত্রী মুক্তা বেগম (২৩) কে আটক করে ডোমার থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে পুলিশ আইনের ৩৪/৭ উপধারায় ডোমার থানায় একটি মামলা হয়েছে।মামলা নং-৬৫। বৃহস্পতিবার সকালে ধৃতদের জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয় পুলিশ।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডোমার থানার এসআই আবু তালেব আকন্দ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।