গর্জে উঠছেন ভ্লাদিমির পুতিন!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: স্নায়ুযুদ্ধকালীন স্বাক্ষরিত ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস (আইএনএফ) চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে গেলে বসে থাকবে না রাশিয়া।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন হুশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, এমনটা করলে তার দেশে নিষিদ্ধ হওয়া ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করা শুরু করবে। বুধবার রুশ সংবাদমাধ্যমে এ কথা জানিয়েছেন পুতিন।

এর আগে চুক্তি মানতে মঙ্গলবার রাশিয়াকে ৬০ দিনের সময় বেঁধে দেয় মার্কিন প্রশাসন। অন্যথায় তারা চুক্তির ইতি টানার হুমকি দিয়েছে। অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে ১৯৮৭ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি নিয়ে একে-অপরকে পাল্টাপাল্টি হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া।

বিবিসি বলেছে, ন্যাটো সম্প্রতি অভিযোগ করে বলেছে যে, আইএনএফ চুক্তি ভঙ্গ করেছে রাশিয়া। এই চুক্তির আওতায় দুই দেশের স্বল্প ও মধ্য পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উত্পাদন নিষদ্ধি করা হয়েছিল। পুতিন অবশ্য বলেন, আইএনএফ চুক্তি থেকে বের হয়ে যাওয়ার বাহানা হিসেবেই এমন অভিযোগ করা হচ্ছে।

টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে পুতিন বলেন, আইএনএফ চুক্তিতে যেসব অসে্ত্রর উত্পাদন নিষদ্ধি করা হয়েছিল, বিশ্বের অনেক দেশ এখন সেগুলো উত্পাদন করছে। তিনি বলেন, অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, আমাদের অ্যামেরিকান অংশীদাররাও এখন এমন অস্ত্রের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে। সে ক্ষেত্রে আমাদের জবাব কী হবে? এটি খুবই সাধারণ বিষয়। তখন আমরাও ওই অস্ত্র তৈরি করা শুরু করব।’

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, রাশিয়ার কারণে যুক্তরাষ্ট্র আইএনএফ চুক্তি থেকে বেরিয়ে যেতে পারে। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বর্তমানের প্রচলিত অস্ত্রগুলোর বিপরীতে তুলনামূলকভাবে সস্তা বিকল্প হতে পারে আইএনএফ চুক্তিতে নিষদ্ধি থাকা ক্ষেপণাস্ত্রগুলো।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, প্রয়োজনীয় পরিবর্তনের দায় এখন রাশিয়ার। শুধু তারা এখন এই চুক্তি বাঁচাতে পারে।

বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে ন্যাটো কার্যালয়ে এক সম্মেলন শেষে তিনি বলেন, বেঁধে দেয়া ৬০ দিনের মধ্যে রাশিয়া চুক্তি মানতে সম্মত না হলে ট্রাম্প প্রশাসন চুক্তির সমাপ্তি টানতে ছয় মাসের প্রক্রিয়া শুরু করতে বাধ্য হবে। যদিও এ সময়টিতে যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু অসে্ত্রর পরীক্ষা চালাবে না বলেও জানিয়েছেন পম্পেও।