ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার ধারাবাহিক উন্নতি

সময়ের কণ্ঠস্বর ::  ফোর্বস ম্যাগাজিনের করা বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় চার ধাপ এগিয়ে ২৬তম স্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে গত বছর তিনি একই তালিকায় ৩০তম অবস্থানে ছিলেন।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) ফোর্বস ম্যাগাজিন এই তালিকা প্রকাশ করে। এ বছরের শীর্ষ ১০০ ক্ষমতাধর নারীর তালিকা সম্পর্কে ফোর্বসের দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ক্ষমতা কাঠামোর পরিবর্তন ও তার দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা নারীরা এ বছর ১০০ ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় স্থান পেয়েছেন।

ম্যাগাজিনটিতে শেখ হাসিনার পরিচয় ও অবদান উল্লেখ করতে গিয়ে লেখা হয়েছে,  ২০১৭ সালে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় ও তাদের জন্য বাংলাদেশে ২ হাজার একর জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে প্রাণে বাঁচতে এই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এ ছাড়া ‘বাংলাদেশ স্থায়ীভাবে রোহিঙ্গাদের বোঝা মাথায় নেবে না’— এ লক্ষে রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

দক্ষিন এশিয়া তথা এশিয়ার মধ্যে “রাজনৈতিক ” অবস্থান থেকে শেখ হাসিনা ১ম । রোহিঙ্গা বিষয়ে তার দূরদর্শীতার স্বিকৃতি স্বরুপ তার এ অবস্থান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দশম জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে এই দায়িত্ব পেয়েছেন। এর আগে, ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্তও তিনি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ১৯৮১ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি। গত বছরের আগস্ট থেকে এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দেওয়া ও তাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে তার ভূমিকার প্রশংসা করেছে ফোর্বস।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২ ধাপ আগে আছেন ব্রিটিশ রানী এলিজাবেথ। অর্থাৎ রাজনৈতিক ভাবে ব্রিটিশ রানী এবং শেখ হাসিনার মধ্যকার দূরুত্ব মাত্র একধাপ। এ ছাড়া তালিকায় স্থান পাওয়া সিঙ্গাপুর এর ফার্স্ট লেডি জি চিং মুলত তার স্বামীর প্রভাব এবং অর্থনৈতিক সম্পদের কারনে স্থান লাভ করেছেন। রাজনৈতিক বা নিজের অর্জনে নয়। যে অবস্থান টা শেখ হাসিনার ধীরে ধীরে নিজের পরিশ্রম এবং যোগ্যতা দিয়ে অর্জন করেছেন।

এর আগে, ২০১৭ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিনের ১০০ ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় ৩০তম অবস্থানে এবং ২০১৬ সালে ৩৬তম অবস্থানে ছিলেন শেখ হাসিনা।

সুত্র- bslnews.com.bd