ফের থ্রিজি ও ফোরজিতে ফিরলো মোবাইল

১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১, ২০১৯ ইন্টারনেট রঙ্গ

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- আবার থ্রিজি ও ফোরজি সেবা সচল করেছে মোবাইল অপারেটরগুলো। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টা ২৫ মিনিট থেকে মোবাইল ইন্টারনেট সেবা ফিরতে শুরু করে।

সকালে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি মোবাইল অপারেটরগুলোকে থ্রিজি ফোরজি চালুর নির্দেশ দেওয়ার পর তারা এ সুবিধা চালু করে।

বিটিআরসির সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. জাকির হোসেন খাঁন গণমাধ্যমকে বলেন, মোবাইল ফোন অপারেটরদের ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

একটি বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরের একজন কর্মকর্তা বলেন, সকাল সাড়ে ১০টা থেকে গ্রাহকরা মোবাইল ইন্টারনেট সেবা পাচ্ছেন। বর্তমানে মোবাইল ফোনে থ্রিজি ও ফোরজি সেবা পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে থ্রিজি ও ফোরজি সেবা ফিরে পেয়ে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঢুঁ মারছেন। এদের মধ্যে আবার কেউ কেউ উচ্ছ্বাসিত হয়ে স্ট্যাটাসে থ্রিজি-ফোরজি ফিরে পাওয়ার বিষয়টি জানান দিচ্ছেন।

মোবাইল ইন্টারনেট ফিরে পেয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন ঢাকাই ছবির চিত্রনায়ক নিরব হোসেনও। তিনি লিখেছেন, এই জয় থ্রি জি ফিরে পাওয়ার জয়…জয় বাংলা।

আশুরা পারভিন আশা নামে গাইবান্ধার এক শিক্ষার্থী সময়ের কণ্ঠস্বরের ফ্যান পেজে জানিয়েছেন, আজ সাড়ে ১০টার পর থেকে তিনি তার মোবাইলে পুরোপুরি থ্রিজি-ফোরজি সেবা পাচ্ছেন।

উচ্ছ্বাসিত হয়ে বলেন, থ্রিজি-ফোরজি চালু হবার পর থেকেই ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন তিনি। যেখানে ফোরজি ব্যবহার করা হত, সেখানে টু জি ব্যবহার করতে ভালো লাগেনি, তাই ইন্টারনেট থেকে এই কয়েকদিন বিরত ছিলেন এই শিক্ষার্থী।

থ্রিজি-ফোরজি বন্ধ থাকায় তার কয়েক জিবি ইন্টারনেটের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। আশা বলেন, নাটক ডাউনলোড দেয়ার জন্য আমি তিন জিবি ইন্টারনেট কিনেছিলাম, কিন্তু মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ থাকায় আমি সেগুলো ব্যবহার করতে পারিনি, এখন দেখি গতকাল রাতে ওই ইন্টারনেট গুলোর মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে।

থ্রিজি-ফোরজি বন্ধ হওয়ার আগে যারা ইন্টারনেট প্যাকেজ কিনেছিল সেগুলোর মেয়াদ বৃদ্ধি করতে মোবাইল অপারেটদের কাছে দাবিও জানান গাইবান্ধার এই শিক্ষার্থী।

উল্লেখ্য, ভোটের আগে প্রথমবার ২৭ ডিসেম্বর রাতে বিটিআরসি দেশের সব মোবাইল ফোন অপারেটরকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত থ্রিজি ও ফোরজি নেটওয়ার্ক বন্ধ রাখতে বললেও ২৮ ডিসেম্বর সকালে থ্রিজি ও ফোরজি নেটওয়ার্ক খুলে দেওয়া হয়। পরে ২৯ ডিসেম্বর বেলা আড়াইটার দিকে বিটিআরসি আবারও থ্রিজি ও ফোরজি বন্ধের নির্দেশ দেয়।

এবার নির্দেশ দেওয়া হয় ৩০ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত শুধু টুজি খোলা থাকবে। তবে মধ্যরাতে কমিশন ফের নির্দেশ পাঠিয়ে পুরো মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করে দেয়। এসময় ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট চালু ছিল। ৩০ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত ইন্টারনেট বন্ধ রাখার কথা থাকলেও এদিন সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে থ্রিজি ও ফোরজি খুলে দেওয়া হয়। তবে রাত ১০টার দিকে ফের নির্দশনা পাঠিয়ে বন্ধ করা দেওয়া হয় থ্রিজি ও ফোরজি ইন্টারনেট।

থ্রিজি ও ফোরজি নেওয়ার্ক বারবার আসা-যাওয়ায় বিপাকে পড়ে ফেসবুক কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা এফ-কমার্স উদ্যোক্তারা। এ সেবা বন্ধ থাকায় মোবাইল থেকে ইন্টারনেটে ঢোকা যায়নি। তবে ব্রডব্যান্ডে ইন্টারনেটে স্বাভাবিক সেবা পেয়েছেন গ্রাহকেরা।