নামাজ আদায় না করার ভয়াবহ শাস্তিসমূহ

নামাজ আদায় না করার ভয়াবহ শাস্তিসমূহ

ইসলাম: যারা নামাজ আদায় করে না আল্লাহ পাক তাদের জন্য ১৫টি আজাব নির্দিষ্ট করে রেখেছেন। এসব আজাবের মধ্যে ৬টি দুনিয়ায়, ৩টি মৃত্যুর সময়, ৩টি কবরে এবং বাকি ৩টি হাশরের ময়দানে দেওয়া হবে।

আজাবসমূহের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা:

দুনিয়াতে বেনামাজির ৬টি আজাব:
১. ইসলামের মূল্যবান নেয়ামতসমূহ হতে তাকে বঞ্চিত করা হয়। ২. যা কিছু নেক কাজ করবে, তার সওয়াব সে পাবে না। ৩. আল্লাহ পাকের সমস্ত ফেরেশতা তার ওপর সর্বদা অসন্তুষ্ট থাকবে। ৪. আল্লাহ তার চেহারা হতে নেক লোকের চিহ্ন উঠিয়ে নেবেন। ৫. তার দোয়া আল্লাহ পাকের নিকট কবুল হবেনা। ৬. তার জীবনে কোনোরূপ বরকত থাকবে না।

মৃত্যুর সময় বেনামাজির ৩টি আজাব:
১. অত্যন্ত দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করবে। ২. সে ক্ষুধার্ত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করবে। ৩. মৃত্যুকালে তার এত পিপাসা পাবে যে, সমস্ত দুনিয়ার পানি পান করতে তার ইচ্ছা হবে।

কবরে বেনামাজির ৩টি আজাব:
১. বেনামাজিকে দাফন করার পর কবর এমন সংকীর্ণ হবে যে, এক পাশের হাড় অপর পাশের হাড়ের সংগে মিলিত হয়ে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে যাবে। ২. তার কবরে দিনরাত্রি সবসময় আগুন প্রজ্বলিত থাকবে। ৩. আল্লাহ বেনামাজির কবরে একজন আজাবের ফেরেশতা নিযুক্ত করবেন। তার হাতে লোহার মুগুর থাকবে। সে মৃত ব্যক্তিকে বলবে, ‘দুনিয়ায় কেন নামাজ পড় নাই। আজ তার ফল ভোগ কর।’ এই বলে ফজর নামাজ না পড়ার জন্য ফজর হতে জোহর পর্যন্ত, জোহর নামাজের শাশ্তিস্বরূপ জোহর থেকে আছর পর্যন্ত, আছরের নামাজের জন্য আছর থেকে মাগরিব পর্যন্ত, মাগরিবের নামাজের জন্য মাগরিব হইতে এশা পর্যন্ত এবং এশার নামাজ না পড়ার জন্য এশা হইতে ফজর পর্যন্ত লোহার মুগুর দ্বারা আঘাত করতে থাকবে।

আর বাকি ৩টি শাস্তি দেওয়া হবে রোজ হাশরের দিন কিয়ামতের ময়দানে। মহান আল্লাহ পাক বিচারের মাধ্যমে সেই শাস্তিসমূহ প্রেরণ করবেন। তাই সময় থাকতে আসুন আমরা সকলেই নিয়মিত নামাজ পড়ি এবং পূর্বের ভুলসমূহের জন্য আল্লাহর কাছে তওবা করি।