আপনার সন্তান কী পর্নোগ্রাফি নেশায় আসক্ত হয়ে যাচ্ছে?

৫:১৭ অপরাহ্ণ | শনিবার, জানুয়ারি ৫, ২০১৯ লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক- প্রযুক্তির সুফল ও কুফল দুইট দিকই আছে। এখন প্রশ্ন হলো আপনি কোনটা নেবেন।

সাবধান আপনার সন্তান যেন কোনোভাইবেই প্রযুক্তির অপব্যবহার না করে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

ইন্টারনেটের আশীর্বাদে আমাদের বেঁচে থাকাকে অনেক রঙচঙে ও সহজ-সামাজিক করে তুলছে বটে, কিন্তু এসবের হাত ধরেই আবার শিশু বা কিশোর বয়স পৌঁছে যাচ্ছে পর্ন সাইটের দিকেও।

নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে ক্রমশ শিকার হচ্ছে তার। কেউ বা সরাসরি অংশ নিচ্ছে চাইল্ড পর্নোগ্রাফিতে। আপনার সন্তানও এমন কোনও অভ্যাসের শিকার হয়ে পড়েনি তো?

এমনিতেই বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছনোর পর শারীরিক নানা পরিবর্তনের সঙ্গে মানসিক পরিবর্তনের শিকার হয় কিশোর-কিশোরীরা।

আর তখনই পর্নোগ্রাফির নেশার শিকার হতেই পারে তারা, কখনও নিছকই কৌতূহলের বশে আবার কখনও অজান্তেই।

আসুন জেনে নেই পর্নোগ্রাফির নেশা থেকে সন্তানকে দূরে রাখকেন যেভাবে-

সন্তানের মোবাইল ও ল্যাপটপে নজর রাখুন বন্ধুত্বের মাধ্যমে-

সন্তানের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক রাখুন, অভিভাবকদের মধ্যে অন্তত কেউ একজন এতটাই সহজ হয়ে মিশুন, যাতে বাইরে থেকে কিছু শুনে এলে বা বন্ধুদের থেকে কিছু জানলে তা সে জানাতে পারে আপনাদের।

পর্নোগ্রাফি কী, এই নেশা কেন ক্ষতি করতে পারে, কেনই বা পর্নোগ্রাফিতে শিশুদের অংশ নেওয়া সারা বিশ্বে নিষিদ্ধ— এসব কথা বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছনোর পর থেকেই গল্পের ছলে তাকে বোঝানোর চেষ্টা করুন।

ভালো বন্ধু হয়ে উঠুন সন্তানের

মোবাইল বা ল্যাপটপ ব্যবহারের সময়ও যাতে খুব একটা গোপনীয়তা তারা অবলম্বন করতে না পারে, সে দিকে খেয়াল রাখুন।

নজরদারি চালান, তবে তাকে অবিশ্বাস করছেন তা বুঝতে দেবেন না। বরং তার পাশের সঙ্গী, বন্ধু ও মেলামেশার পরিসরের সকলকেই কমবেশি চিনে রাখুন।

সন্তানের মুখে খারাপ শব্দ

সন্তানের মুখে হঠাৎই কোনও খারাপ শব্দ শুনলে তা লে কোথা থেকে শিখলো তা জানতে চান, শাসন নয়, বন্ধুত্বই এই কৌশলের অন্যতম চাবিকাঠি।

পর্ন ছবি বা ভিডিও দেখা

নিজেরাও সন্তানের সামনে পর্ন ছবি বা ভিডিও নিয়ে আগ্রহ দেখানো বা আলোচনার বিষয় থেকে দূরে থাকুন।

সন্তানকে নিয়ে ঘুরতে যাওয়া-

সন্তানকে প্রকৃতি দেখাতে মাঝে মধ্যে সাথে করে ঘোরাতে নিয়ে যেতে পারেন। এতে করে সন্তান ও আপনার মধ্যে দুরত্ব কিছুটা কমবে।