সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বগুড়া বিএনপি সভাপতির কলার চেপে ধরা নিয়ে মুখ খুললেন মির্জা ফখরুল

২:০৬ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ
mirza fakhrul got viral

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক :: বগুড়ায় যাত্রাবিরতির সময় মহাসচিবের সাথে স্থানীয় জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের কয়েকটি ছবি নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বিতর্ক। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে সাইফুল ইসলামের জ্যাকেটের কলার চেপে ধরেছেন মির্জা ফখরুল। ছবিটি ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়েছে।

বুধবার নিজ জেলা ঠাকুরগাঁও থেকে ফেরার পথে দুপুরে বগুড়া শহরতলির গোকুল এলাকায় পাঁচতারকা হোটেল মম-ইন হোটেল যাত্রাবিরতি দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরে তিনি সেখানে দলীয় নেতাকর্মী ও গণমাধ্যমের সাথে কথা বলে আবার ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। বিকেলে একটি গণমাধ্যমে ওই হোটেলের একটি লিফটে দাঁড়ানো বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে কয়েকজন নেতা কথা বলছেন-এমন ছবি প্রকাশ করে উল্লেখ করা হয়-তারা বাকবিতণ্ডায় জড়িয়েছেন।

লিফটে উঠার সময় হঠাৎ করেই কিছু একটা নিয়ে বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সঙ্গে কথা-কাটাকাটি হয় ফখরুলের। একপর্যায়ে সাইফুলের জ্যাকেটের কলার চেপে ধরেন মির্জা ফখরুল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মহাসচিবের মতবিনিময় সভার ভেন্যু নির্ধারণ নিয়ে বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হচ্ছিলো। লিফটের মধ্যে মহাসচিবের সামনেই সাইফুল ও চাঁন বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে পৌঁছায়। তারা উত্তেজিত হয়ে পড়লে মহাসচিব দুই জনের মাঝে অবস্থান নিয়ে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানান, এতে উভয় নেতার সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। তবে কী কারণে তাদের মধ্যে এ অবস্থার সৃষ্টি হয় সে সম্পর্কে কেউ বলতে রাজি হননি।

বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে বগুড়া বিএনপির সভাপতির ‘বাকবিতণ্ডা’র ছবির ব্যাখ্যা দিয়েছে জেলা বিএনপি। বিকেলেই বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম জেলা বিএনপির সভাপতি স্বাক্ষরিত একটি বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে গণমাধ্যমে মহাসচিবের সঙ্গে জেলা বিএনপি নেতাদের বাকবিতণ্ডা সংক্রান্ত সংবাদের প্রতিবাদ জানানো হয়। জেলা বিএনপির সভাপতি দাবি করেছেন, মহাসচিবের সঙ্গে তার কোনো বাকবিতণ্ডা হয়নি, স্থানীয় আরেক নেতার সঙ্গে তিনি তর্কে জড়ালে মহাসচিব তাদের দুজনকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেছিলেন। সেই ঘটনার খণ্ডিত অংশ গণমাধ্যমে ভিন্নভাবে প্রচার হচ্ছে বলে দাবি এই বিএনপি নেতার।

সাইফুল ইসলাম প্রথমসারির একটি প্রভাবশালী পত্রিকাকে দেয়া বক্তব্যে বলেন, মহাসচিবের কর্মসূচির ব্যাপারে আমার সঙ্গে আগে থেকে কেন কথা বলা হয়নি, সে বিষয়টি জেলা সম্পাদক জয়নাল আবেদীনের কাছে জানতে চেয়েছিলাম। সে সময় মহাসচিব আমাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, “সাইফুল তুমি থাম তো”!’

জয়নাল আবেদীন বলেন, দলীয় মহাসচিবের সামনে জেলা সভাপতির এ ধরনের আচরণ দলীয় শৃঙ্খলার পরিপন্থী। নির্বাচনের আগেও মহাসচিবের উপস্থিতিতে হট্টগোল করা হয়েছে। এর আগে গত ১৪ ডিসেম্বর বগুড়ার শহীদ টিটু মিলনায়তনের কর্মিসভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উপস্থিতিতে হট্টগোল হয়। সেখানে বিএনপির মহাসচিবের সঙ্গে সাইফুল-সমর্থিত এক নেতার তর্কে জড়ানোর ভিডিও ভাইরাল হয়।

এ বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, লিফটে ওঠার পর বগুড়া জেলা বিএনপির সম্পাদক জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে সভাপতি সাইফুল ইসলামের তর্ক বাধে। আমি সাইফুল ইসলামকে থামিয়ে দেওয়ার জন্য জ্যাকেটে হাত দিয়ে বলেছি, এখানে মিডিয়ার লোকজন রয়েছে, তোমরা থাম। এর বেশি কিছু হয়নি।’