সংবাদ শিরোনাম
বাউফলে তাপস হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি | নওগাঁয় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করায় যুবক গ্রেফতার | দেশে করোনায় একদিনে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড, শনাক্ত আরও ২৭৪৩ | জামালপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে সাবেক মেম্বারের মৃত্যু | ডা. জাফরুল্লাহ’র সুস্থতা কামনায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে দোয়া ও কোরআন খতম | মালয়েশিয়ায় করোনার ‘জাল সার্টিফিকেট’ বিক্রি, দুই বাংলাদেশি আটক | ৬ দফা দিবসে বঙ্গবন্ধুরর প্রতিকৃতিতে আ.লীগের শ্রদ্ধা | হবিগঞ্জে টানা বৃষ্টি ও ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, শাক সবজিসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি | শ্রীপুরে খাবার সংকটে সহস্রাধিক বানর, ওদের কান্না থামাবে কে? | হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হলো করোনা আক্রান্ত মন্ত্রী বীর বাহাদুরকে |
  • আজ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আগুনের লেলিহান শিখায় দুই ভাইয়ের স্বপ্ন পুড়ে ছাই

৩:১৩ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ মফস্বল সংবাদ

সময়ের কন্ঠস্বর, ময়মনসিংহ :: এনজিও ও কৃষি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ৬টি গাভী কিনেন দুই ভাই বাক প্রতিবন্ধী হুমায়ুন কবির (৫০) ও কৃষক নজরুল ইসলাম মিয়া (৪২)। গাভীগুলো আগামী তিন মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে বাছুর দেওয়ার কথা ছিল। আর এই গাভীগুলোর দুধ বিক্রি করে ঋণ পরিশোধের স্বপ্ন দেখছিলেন তাঁরা। কিন্তু গত মঙ্গলবার রাতের কোনো এক সময় গোয়াল ঘরে রহস্যজনক আগুন লেগে গরুগুলি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। সেই সঙ্গে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যায় দুই ভাইয়ের স্বপ্ন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ক্ষতিগ্রস্ত দুই ভাই হচ্ছেন- ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের চরপুবাইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা বছির উদ্দিনের ছেলে। তাঁদের মধ্যে হুমায়ুন কবির একজন বাক্প্রতিবন্ধী ও নজরুল ইসলাম প্রান্তিক চাষী। নজরুল ইসলাম জানান, তাঁর দুই ছেলে এক মেয়ে ও বড় ভাইয়ের তিন মেয়ে এক ছেলে। অল্প কিছু জমিজমার ওপর নির্ভর ছাড়াও গরু লালন-পালন করে পরিবারের ভরণপোষণ চালান।

নজরুল জানান, নিজেদের সহায় সম্পদের সকল কাগজপত্র প্রামীণ ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংকে জমা রেখে প্রায় তিন লাখ টাকা ঋণ নিয়ে ছয়টি গাভী কিনেন। এ অবস্থায় স্ত্রীরা সেলাই ও অন্যান্য কাজ করে অনেক কষ্টে ঋণের কিস্তি দিয়ে যাচ্ছেন। সেই সঙ্গে অপেক্ষা করছেন গরুগুলির দেওয়া দুধ বিক্রি করে খুব দ্রুত ঋণ পরিশোধ করবেন। কিন্তু গত মঙ্গলবারের এক রহস্যজনক আগুনে গরু গুলি পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সকল পরিকল্পনাও ভেস্তে যায়।

ক্ষতিগ্রস্ত দুই ভাইয়ের শেষ সম্বল ৬টি গরু পুড়ে মারা যাওয়ায় বড় ভাই হুমায়ুন কবির কেঁদে কেঁদে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এলাকাবাসী মনে করেন দুই ভাইয়ের পরিবারের এই হতাশা কাটিয়ে ওঠার জন্য তাঁদের সহযোগতিা করা প্রয়োজন।