রাজবাড়ীতে ৩ মাদক সেবী আটক: ছবি তুলতে সাংবাদিককে বাধাদিল পুলিশ

৮:১৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ ঢাকা
RAJBARI PIC

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর: রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের চিড়ার মিল সংলগ্ন একটি বাগান থেকে কলেজ ছাত্র সহ ৩জন মাদক সেবীকে আটক করেছে পুলিশ।

১০ ফেব্রুয়ারী রোববার সন্ধ্যার দিকে চিাড়ার মিলের পাশের মেহগুনী বাগান থেকে সেবন করা অবস্থায় তাদের আটক করা হয় বলে দাবি করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলো, ১ মোঃ ইমরান মুন্সী (১৭), রাজ্জাক মিয়ার ছেলে সোহাগ মিয়া (১৮), মোঃ সিরাজুল ইসলামের ছেলে ও বাস-ট্রাকের বডি মিস্ত্রী মোঃ সজীব (১৭)। সকলের বাড়ি দক্ষীণ শ্রীপুরের ইন্দ্রনারায়ণপুর গ্রামে।

সদর থানার এস আই মোঃ জাহিদুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চিড়ার মিলের পাশের মেহগুনী বাগানে ইয়াবা সেবন করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সেবন করা অবস্থায় ৩জন কে আটক করা হয়। এসময় অপর একজন পালিয়ে যায়।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, মৃত আলী আহাম্মদের নাতি সহ ৩জনকে রাস্তার উপড়ে কয়েকজন লোক ধরে রেখেছে। পরে জানতে পারি তারা পুলিশের লোক। পুলিশ বলছে তারা বাগানের ভিতরে ইয়াবা সেবন করছিল। এখন সত্য মিথ্যা আমরা জানি না। কারন আমরা কেউ দেখিনি তারা মাদক জাতীয় কিছু সেবন করছিল কি না।

আটককৃত সজিব জানায় আমাদেরকে এলাকার বড় ভাই ট্রাক চালক কালা বাগানের মধ্যে ডেকে নিয়ে যায়। পরে সেখানে ইয়াবা সেবন করে। সজিব আরো বলেন, আজকেই প্রথম সে ইয়াবা সেবন করেন।

তবে এসময় পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় বাধার শিকার হন সময়ের কণ্ঠস্বরের রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি এবং রাজবাড়ী সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি খন্দকার রবিউল ইসলাম।  ঘটনাস্থলে ছবি তুলতে গেলে এসআই জাহিদ তাকে ছবি তুলতে বাধা দিয়ে বলেন, আপনি কার অনুমতি নিয়ে ছবি তুলছেন। তিনি সেসময় সাংবাদিক রবিউলের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

ছবি তুলতে বাধা দেওয়ার বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ রেজাউল করিমকে জানালে তিনি বলেন, ছবি তুলতে বাধা দেওয়ার কথা না। তবে আসলে কেন বাধা দিয়েছে এ বিষটি আমি দেখছি।

খন্দকার রবিউল ইসলাম জানান, ১০ ফেব্রুয়ারী রবিবার সন্ধ্যার দিকে দক্ষিণ শ্রীপুর আলী আহাম্মদ এর বাড়ির সামনে রাস্তা দিয়ে এলজিডি অফিসের দিকে যাচ্ছিলাম এমন সময় মোড়ের উপরে ৩জন যুবককে হাত বেধে ধরে রেখেছেন কয়েকজন লোক। তারা সিভিলে ছিলেন।  পরে বুঝতে পারি তারা রাজবাড়ী সরদর থানার এসআই জাহিদ সহ ৩/৪জন। পরে তাদের সাথে কথা বলে জানতে পারি। এই ৩যুবক পাশের একটি মেহগুনি বাগানে বসে ইয়াবা সেবন করছিল। পরে আমি ছবি তুলতে গেলে এসআই জাহিদ আমাকে বাধাদেন। বলেন আপনি কেন ছবি তুলছেন। আমার কাছ থেকে কি অনুমতি নিয়েছেন। সাংবাদিক রবিউল বলেন যে কার কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। তিনি বলেন আমার কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। কেন অনুমতি নিতে হবে বললে এসআই বলেন, আপনার সিনিয়রদের কাছে ফোন করে জানেন কেন নিতে হবে। জাহিদ বলেন ছবি তুলতে হলে পুলিশের অনুমতি নিতে হয়। তবে কোন ধারায় কোন আইনে বলা আছে এটা তিনি বলতে পারেননি।